শিরোনাম:
●   জামায়াতের সরিষাতেই ভুত ●   জয়পুরহাটে পিতলের মূর্তিসহ এক চোরাকারবারি আটক ●   ভালুকায় পুকুর খননের সময় মাটির নীচ থেকে ২৬ কেজি ওজনের কষ্টি পাথরের ত্রিমূর্তি উদ্ধার ●   বাসিয়া নদীটি খননের ১ কোটি ৮০ লাখ টাকা ব্যয়ে খনন কাজটি পুরোটাই জলে ●   ঘুমের ইনজেকশন পুশ করে ৭ম শ্রেনীর ছাত্রীকে ধর্ষন করলো গ্রাম্য চিকিৎসক সাইফুল ●   গাইবান্ধায় ইরি-বোরো ক্ষেতে কৃষকের সোনালি স্বপ্নের হাতছানি ●   বান্দরবান জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ক্যশৈহ্লার মনগড়া বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়েছেন সাংবাদিকরা ●   গফরগাঁওয়ে যুবলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ-৫ : আহত-১১ ●   ভাত না খাওয়ায় মায়ের এক থাপ্পড়ে ৫ বছরের মেয়ের মৃত্যু : মা আটক ●   কাউখালীতে ৭ম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে আটক-১ ●   সাংবাদিক মাহফুজ উল্লাহ আর নেই ●   র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে মাদক ব্যবসায়ী মহিউদ্দিন নিহত ●   ব্যারিষ্টার আমিনুল হকের মৃত্যুতে ফারুক চৌধুরীর শোক ●   শ্রীলংকায় গির্জায় হামলায় মৃতের সংখ্যা ২০৭ ছাড়িয়েছে ●   চট্টগ্রামে মানবাধিকার ফাউন্ডেশনের মানববন্ধন ●   রবিদাস সম্প্রদায়ের জমি জবর দখলের অপচেষ্টা ●   ময়মনসিংহে অটোরিকশা-ট্রাক সংঘর্ষে নিহত-৪, আহত-৪ ●   মাদকের বিষয়ে কোন ছাড় নয় : আরএমপি কমিশনার ●   ঝিনাইদহে আ’লীগ কর্মীকে কুপিয়ে হত্যা ●   আত্রাইয়ে আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশের ভুমিকা নিয়ে জনমনে প্রশ্ন ●   বিশ্বনাথে মেলার নামে লটারি বাণিজ্য ●   লামায় শাক-সবজি ক্ষতের আড়ালে গাঁজা চাষ ●   লামায় পিকআপ দূর্ঘটনায় আহত শিশুর মৃত্যু ●   মেয়েকে ধর্ষণের ভিডিও বাবাকে দেখিয়ে ধর্ষকের হুমকী : ধর্ষিতার আত্মহত্যার চেষ্টা ●   দেশে ১৫ দিনে ৩৯ ধর্ষণ ●   সুন্দরবনে ৯ ফুট লম্বা অজগর অবমুক্ত ●   দরিদ্র মায়ের আশা পূরণ হলো হোটেল বয় গৌর চন্দ্র স্কুলে ●   প্রলোভনে তামাক চাষ, আর্থিক লোকসানের মুখে চাষীরা ●   রাজশাহীতে ইয়াবাসহ কারারক্ষী গ্রেপ্তার ●   দীঘিনালায় সম্প্রীতি মেলার নামে অশ্লীল জুয়া-হাউজীর আসর
রাঙামাটি, মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০১৯, ১০ বৈশাখ ১৪২৬


CHT Media24.com অবসান হোক বৈষম্যের
সোমবার ● ৮ অক্টোবর ২০১৮
প্রথম পাতা » ঢাকা » ভিন্নমত দমন ও ক্ষমতা চিরস্থায়ী করার জন্য ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন
প্রথম পাতা » ঢাকা » ভিন্নমত দমন ও ক্ষমতা চিরস্থায়ী করার জন্য ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন
২৩৪ বার পঠিত
সোমবার ● ৮ অক্টোবর ২০১৮
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

ভিন্নমত দমন ও ক্ষমতা চিরস্থায়ী করার জন্য ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন

---অনলাইন ডেস্ক :: মো.এনামুল হক এনা : নির্বাচনকে সামনে রেখে সরকার মূলত ভিন্নমত দমনের উদ্দেশ্যে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন করেছে। ভিন্নমত দমন করে ক্ষমতা চিরস্থায়ী করার লক্ষ্যেই এই আইন পাশ করা হয়েছে। আমাদের নতুন সময়ের সঙ্গে আলাপকালে এ কথা বলেছেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে) একাংশের মহাসচিব এম আবদুল্লাহ।

তিনি বলেন, এখনো ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন কার্যকর হয়নি। তাতেই দেখা যায়, ইউটিউবে সরকারের বিপক্ষে যায়, এমন ভিডিও দেয়ার কারণে দু’জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এর আগে ময়মনসিংয়ের অজপাড়াগাঁয়ের একজনকে দেখলাম, খুব বেশি বোঝেনও না ফেসবুক। তিনি নাকি প্রধানমন্ত্রীর ছবি শেয়ার দিয়েছেন, যেটা তার সমর্থকদের পছন্দ হয়নি। এই একটি ছবি শেয়ার দেওয়ার কারণে তাকে জেলে পাঠানো হয়েছে। সংবিধানের মৌলিক যে বিধান, তাতে মানুষের মতপ্রকাশের স্বাধীনতা রয়েছে॥ ভাবপ্রকাশের স্বাধীনতা রয়েছে॥ সবাই যে আমাকে পছন্দ করবে, আমার পক্ষে বলবে, আমার গুণগান করবে, এই প্রত্যাশা করাটাই ঠিক না। এটা স্বৈরতান্ত্রিক মানসিকতা।

এম আবদুল্লাহ বলেন, ‘আমি দোষী বলে আমি মানুষ। আমার দোষ নিয়ে আলোচনা হবে, আমার গুণের আলোচনা হবে। এটার সুযোগ দিতে হবে। সেখান থেকে আমি আমার দোষগুলো শুধরে নেবো। ক্ষমতায় থেকে কাজ করতে গেলে ভুল হবেই। এই ভুলগুলো গণমাধ্যম বা কোনো সত্যিকারের সমালোচক ধরিয়ে দেবে। আমার ভুলগুলোর গঠনমূলক সমালোচনা করবে। তখন আমি ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে শুধরে যাবো। এটাই গণতান্ত্রিক মানসিকতা।

বিএফইউজের মহাসচিব বলেন, সংবিধানের ৩৯ অনুচ্ছেদে স্বাধীন মতপ্রকাশের নিশ্চয়তার স্পষ্ট উল্লেখ আছে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের প্রতিটি লাইন, প্রতিটি প্যারা, প্রতিটি ধারা সেই ৩৯ অনুচ্ছেদের লংঘন। শুধু তাই নয়, গোটা সংবিধানে নাগরিক মৌলিক অধিকারের যতগুলো ধারা আছে সবগুলো ধারার একটি সুষ্পষ্ট লঙ্ঘন।

তিনি আরো বলেন, বর্তমান সরকার পঞ্চদশ সংশোধনীর মধ্যদিয়ে একটি ধারা যুক্ত করেছেন সংবিধানে। এতে বলা হয়েছে, কোনো ব্যক্তি যদি এদেশে সংবিধান লঙ্ঘন করেন, তাহলে তিনি মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত হওয়ার অপরাধে অপরাধী হবেন। তার সর্বোচ্চ সাজা হবে মৃত্যুদণ্ড। এই সরকার নিজেরাই তো প্রতিনিয়ত প্রতি পদে পদে আইন করে সংবিধান লঙ্ঘন করছেন। সংবিধানের কোনো কিছু তোয়াক্কা করছেন না। সরকার বলছেন, তার মতাদর্শের সাংবাদিকদের কোনো সমস্যা হচ্ছে না। এর অর্থ কী? এর অর্থ হলো সরকারের মতাদর্শের সবাই নিরাপদ। তাদের পক্ষের কারো কোনো সমস্যা হবে না। ভিন্নমতকে দমনের জন্য তিনি এই আইনটি করেছেন। এটা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক। এটা কোনো গণতান্ত্রিক সমাজে কাম্য নয়। এটা কোনো সভ্য সমাজে কাম্য নয়। যারা আমাকে পছন্দ করেন কিংবা সমালোচনা করবেন; আমি তাদেরকে নিষ্ঠুরভাবে দমন করবো। বিনা ওয়ারেন্টে আমি তাদের গ্রেফতার করবো। আমি তাদের বাসাবাড়িতে ঢুকে তাদের কম্পিউটার জব্দ করবো। এটা হয় না।

এম আবদুল্লাহ আরো বলেন, আপনার বাসায় ঢুকে যদি কোনো কারণে আপনাকে পছন্দ না হয়, আপনার ল্যাপটপ বা কম্পিউটার সন্দেহজনকভাবে তুলে নিয়ে যাবো। তুলে নিয়ে যাওয়ার পর আইনশৃংঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সেই ল্যাপটপে কী ঢুকাবে? ধরুন, আপনার ল্যাপটপে রাষ্ট্রবিরোধী বা সরকারবিরোধী কিছু নেই কিন্তু তারা কিছু সেখানে দিয়ে দিলো। সেটা দিয়ে আপনার যাবজ্জীবন শাস্তির ব্যবস্থা করবে না এর গ্যারান্টিটা কে দেবে?

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের বাস্তবতায় আইনশৃংঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর যে ভূমিকা দলীয় আনুগত্যের জায়গাটায়, এখানে পেশাদারিত্ব বলে তো কিছু আর অবশিষ্ট নেই। আমরা সেটা পদে পদে দেখতে পাচ্ছি। এই বাস্তবতায় এই ধরণের আইন যখন পুলিশ বাহিনীর হাতে তুলে দেওয়া হয়, তার পরিণতি হবে ভয়ংকর। সম্পাদনা : শরিফ উদ্দিন আহমেদ, সালেহ্ বিপ্লব । সূত্র: আমাদের সময়.কম



পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)