শিরোনাম:
●   স্বামী ঘর ছেড়ে পালানো গৃহবধুকে নিয়ে মা উপস্থিত হলেন থানায় ●   ভারতের প্রথম জাতি-ধর্মহীন নাগরিকের স্বীকৃতি পেল স্নেহা ●   সাবেক এমপি বদির ৩ ভাই, ভাগিনা, ফুফাতো ভাইসহ ১০২ ইয়াবা কারবারীর আত্মসমর্পণ ●   লামায় চেয়ারম্যান প্রার্থী ইসমাইল এর জানাজায় হাজা‌রো মানুষের ঢল ●   আত্রাইয়ে প্রচারনায় ব্যস্ত এবাদুর রহমান ●   গাইবান্ধায় রামসাগর এক্সপ্রেসে চালুর দাবিতে রেলওয়ে ষ্টেশনে অবস্থান কর্মসূচী ●   চলনবিলে ধান ও চালের বাজারে অসংগতির ফলে ব্যবসায় স্থবিরতা : ৭০ শতাংশ মিল চাতাল বন্ধ ●   খাগড়াছড়িতে আওয়ামী লীগ নেতার বিরুদ্ধে মানববন্ধন ●   আমেরিকান নাগরিকদের পাকিস্থান থেকে দেশে ফেরার নির্দেশ দিয়েছে ট্রাম্প প্রশাসন ●   ভারত সরকার পাকিস্থানের বিরুদ্ধে একশন শুরু করে দিয়েছে ●   আখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে পাকশীতে ৮৯ তম ওয়াজ মাহফিল সমপন্ন ●   নাইক্ষ্যংছ‌ড়ি‌তে ১১ বি‌জি‌বি’র অ‌ভিযা‌নে ৪ লক্ষ ৪০‌ হাজার ইয়াবা উদ্ধার ●   ঝিনাইদহে ফেনসিডিলসহ ভুয়া সাংবাদিক গ্রেফতার ●   খাটের নিচে পাতিলের ভেতর শিশুর লাশ : ঘাতক পিতা পলাতক ●   স্মৃতির অতলে হারিয়ে যেতে বসেছে শহীদ মিনার ●   বান্দরবা‌নে ভয়াবহ আগুনে বসতবা‌ড়িসহ আইস ফ্যাক্ট‌রি ভস্মীভূত ●   শ্বাশুরী হত্যায় ঘাতক পুত্রবধু আটক ●   বাঘার ইউএনওর ফোন নাম্বর ক্লোন করে চাঁদা দাবি ●   লামায় ঘাতক টমটম কে‌ড়ে নিল মাদ্রাসা ছাত্রের প্রাণ ●   আলীকদমে ইট ভাটা মালিকদের রাম রাজত্ব নিরব দর্শকের ভূমিকায় স্থানীয় প্রশাসন ●   ভালোবাসা ভাগাভাগি করল হরিজন শিশুরা ●   স্বৈরাচার বিরোধী প্রতিরোধ দিবস উপলক্ষে গাইবান্ধায় ছাত্রফ্রন্টের মিছিল সমাবেশ ●   ঝালকাঠিতে ভালোবাসা দিবসে ব্যতিক্রমী উদ্যোগ ●   মির্জাগঞ্জে আধুনিকতার ছোয়া লাগাতে চান খান মো. আবু বকর সিদ্দিকী ●   বরকলে ১টি শর্টগানসহ কার্তুজ উদ্ধার ●   আদিবাসী তরুণীকে গুলশানে ধর্ষণ ●   উপজেলা পরিষদ নির্বাচন : বান্দরবানে মাঠে নামছে আ’লীগের ৭ প্রার্থী ●   অশ্লীল ভিডিও প্রকাশের জের : শিক্ষিকার শাস্তির দাবিতে খাগড়াছড়িতে মানববন্ধন ●   বাংলাদেশে তামাক ব্যবহার কমেছে : তথ্যমন্ত্রী ●   ১টি ৮০ কেজী ওজনের বার্গার মাছের দাম ১লক্ষ ২০হাজার টাকা : ঐতিহ্যবাহী পোড়াদহ মেলা সম্পন্ন
রাঙামাটি, রবিবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০১৯, ৪ ফাল্গুন ১৪২৫


CHT Media24.com অবসান হোক বৈষম্যের
সোমবার ● ৮ অক্টোবর ২০১৮
প্রথম পাতা » ঢাকা » ভিন্নমত দমন ও ক্ষমতা চিরস্থায়ী করার জন্য ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন
প্রথম পাতা » ঢাকা » ভিন্নমত দমন ও ক্ষমতা চিরস্থায়ী করার জন্য ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন
২১৪ বার পঠিত
সোমবার ● ৮ অক্টোবর ২০১৮
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

ভিন্নমত দমন ও ক্ষমতা চিরস্থায়ী করার জন্য ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন

---অনলাইন ডেস্ক :: মো.এনামুল হক এনা : নির্বাচনকে সামনে রেখে সরকার মূলত ভিন্নমত দমনের উদ্দেশ্যে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন করেছে। ভিন্নমত দমন করে ক্ষমতা চিরস্থায়ী করার লক্ষ্যেই এই আইন পাশ করা হয়েছে। আমাদের নতুন সময়ের সঙ্গে আলাপকালে এ কথা বলেছেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে) একাংশের মহাসচিব এম আবদুল্লাহ।

তিনি বলেন, এখনো ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন কার্যকর হয়নি। তাতেই দেখা যায়, ইউটিউবে সরকারের বিপক্ষে যায়, এমন ভিডিও দেয়ার কারণে দু’জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এর আগে ময়মনসিংয়ের অজপাড়াগাঁয়ের একজনকে দেখলাম, খুব বেশি বোঝেনও না ফেসবুক। তিনি নাকি প্রধানমন্ত্রীর ছবি শেয়ার দিয়েছেন, যেটা তার সমর্থকদের পছন্দ হয়নি। এই একটি ছবি শেয়ার দেওয়ার কারণে তাকে জেলে পাঠানো হয়েছে। সংবিধানের মৌলিক যে বিধান, তাতে মানুষের মতপ্রকাশের স্বাধীনতা রয়েছে॥ ভাবপ্রকাশের স্বাধীনতা রয়েছে॥ সবাই যে আমাকে পছন্দ করবে, আমার পক্ষে বলবে, আমার গুণগান করবে, এই প্রত্যাশা করাটাই ঠিক না। এটা স্বৈরতান্ত্রিক মানসিকতা।

এম আবদুল্লাহ বলেন, ‘আমি দোষী বলে আমি মানুষ। আমার দোষ নিয়ে আলোচনা হবে, আমার গুণের আলোচনা হবে। এটার সুযোগ দিতে হবে। সেখান থেকে আমি আমার দোষগুলো শুধরে নেবো। ক্ষমতায় থেকে কাজ করতে গেলে ভুল হবেই। এই ভুলগুলো গণমাধ্যম বা কোনো সত্যিকারের সমালোচক ধরিয়ে দেবে। আমার ভুলগুলোর গঠনমূলক সমালোচনা করবে। তখন আমি ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে শুধরে যাবো। এটাই গণতান্ত্রিক মানসিকতা।

বিএফইউজের মহাসচিব বলেন, সংবিধানের ৩৯ অনুচ্ছেদে স্বাধীন মতপ্রকাশের নিশ্চয়তার স্পষ্ট উল্লেখ আছে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের প্রতিটি লাইন, প্রতিটি প্যারা, প্রতিটি ধারা সেই ৩৯ অনুচ্ছেদের লংঘন। শুধু তাই নয়, গোটা সংবিধানে নাগরিক মৌলিক অধিকারের যতগুলো ধারা আছে সবগুলো ধারার একটি সুষ্পষ্ট লঙ্ঘন।

তিনি আরো বলেন, বর্তমান সরকার পঞ্চদশ সংশোধনীর মধ্যদিয়ে একটি ধারা যুক্ত করেছেন সংবিধানে। এতে বলা হয়েছে, কোনো ব্যক্তি যদি এদেশে সংবিধান লঙ্ঘন করেন, তাহলে তিনি মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত হওয়ার অপরাধে অপরাধী হবেন। তার সর্বোচ্চ সাজা হবে মৃত্যুদণ্ড। এই সরকার নিজেরাই তো প্রতিনিয়ত প্রতি পদে পদে আইন করে সংবিধান লঙ্ঘন করছেন। সংবিধানের কোনো কিছু তোয়াক্কা করছেন না। সরকার বলছেন, তার মতাদর্শের সাংবাদিকদের কোনো সমস্যা হচ্ছে না। এর অর্থ কী? এর অর্থ হলো সরকারের মতাদর্শের সবাই নিরাপদ। তাদের পক্ষের কারো কোনো সমস্যা হবে না। ভিন্নমতকে দমনের জন্য তিনি এই আইনটি করেছেন। এটা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক। এটা কোনো গণতান্ত্রিক সমাজে কাম্য নয়। এটা কোনো সভ্য সমাজে কাম্য নয়। যারা আমাকে পছন্দ করেন কিংবা সমালোচনা করবেন; আমি তাদেরকে নিষ্ঠুরভাবে দমন করবো। বিনা ওয়ারেন্টে আমি তাদের গ্রেফতার করবো। আমি তাদের বাসাবাড়িতে ঢুকে তাদের কম্পিউটার জব্দ করবো। এটা হয় না।

এম আবদুল্লাহ আরো বলেন, আপনার বাসায় ঢুকে যদি কোনো কারণে আপনাকে পছন্দ না হয়, আপনার ল্যাপটপ বা কম্পিউটার সন্দেহজনকভাবে তুলে নিয়ে যাবো। তুলে নিয়ে যাওয়ার পর আইনশৃংঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সেই ল্যাপটপে কী ঢুকাবে? ধরুন, আপনার ল্যাপটপে রাষ্ট্রবিরোধী বা সরকারবিরোধী কিছু নেই কিন্তু তারা কিছু সেখানে দিয়ে দিলো। সেটা দিয়ে আপনার যাবজ্জীবন শাস্তির ব্যবস্থা করবে না এর গ্যারান্টিটা কে দেবে?

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের বাস্তবতায় আইনশৃংঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর যে ভূমিকা দলীয় আনুগত্যের জায়গাটায়, এখানে পেশাদারিত্ব বলে তো কিছু আর অবশিষ্ট নেই। আমরা সেটা পদে পদে দেখতে পাচ্ছি। এই বাস্তবতায় এই ধরণের আইন যখন পুলিশ বাহিনীর হাতে তুলে দেওয়া হয়, তার পরিণতি হবে ভয়ংকর। সম্পাদনা : শরিফ উদ্দিন আহমেদ, সালেহ্ বিপ্লব । সূত্র: আমাদের সময়.কম



আর্কাইভ

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)