শিরোনাম:
●   চলনবিল অঞ্চলের বড়াল নদী পানির অভাবে এখন মরাগাঙ ●   গাইবান্ধায় ঝুঁকি মোকাবেলায় বরাদ্দ বৃদ্ধির দাবিতে মানববন্ধন ●   রুমায় ৩ জেএসএস নেতা আটক ●   কুয়াকাটায় ধারণ করা ইত্যাদি বিটিভিতে প্রচারিত হবে ২৯ মার্চ ●   পানছড়ি কলেজের অধ্যক্ষের নামে মিথ্যা অভিযোগের প্রতিবাদে মানববন্ধন ●   শহরের শিক্ষার সাথে দূর্গম এলাকার স্কুলের শিক্ষার মান বাড়াতে হবে ●   মায়ের হাতে শিশুকন্যা খুন ●   আক্কেলপুরে ঐতিহ্যবাহী ঘোড়ারহাটে ক্রেতা বিক্রেতা ও দর্শনাথীদের পদচারণায় এখন মুখরিত ●   আলীকদম উপ‌জেলা চেয়ারম্যান আমার ইচ্ছার বিরুদ্ধে কিছুই করেননি : রুম পাও ম্রো ●   রাঙামাটিতে মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে উন্নয়ন বোর্ডের শিক্ষাবৃত্তি প্রদান ●   আলীকদমে স্বাধীনতা দিবস কাবাডি প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত ●   রাজশাহীতে লেভেল ক্রসিং সামলাচ্ছেন এক নারী ●   গোলাপগঞ্জে মিষ্টি রহস্য, বিষক্রিয়ায় ১জনের মৃত্যু, আশঙ্কাজনক-৩ ●   আলীকদম উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালামের বিরুদ্ধে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিন্দার ঝড় ●   চলনবিলের বিস্তির্ণ ফসলের মাঠ ইরি-বোরো ধানের সবুজের সমারোহ ●   ছুরিকাঘাতে বন্ধু খুন : ঘাতক বন্ধুর থানায় আত্মসমর্পণ ●   বান্দরবানে ম‌ডেল পাড়া কেন্দ্রের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন কর‌লেন মন্ত্রী বীর বাহাদুর ●   সংসদে চকোলেট খেয়ে ক্ষমাপ্রার্থী কানাডার প্রধানমন্ত্রী ●   ময়মনসিংহে পানিবাহিত রোগে আক্রান্ত হয়ে ২৫ কলেজ শিক্ষার্থী হাসপাতালে ●   তরুণ, নারী এবং দরিদ্র জনগোষ্ঠির সুরক্ষায় তামাকপণ্যের মূল্য বৃদ্ধির প্রস্তাব ●   ঈশ্বরদীতে শত বর্ষ পূর্তি অনুষ্ঠান ●   বাঘাইছড়ির ৮ জন নির্বাচন কর্মকর্তা হত্যাকারীদের গ্রেফতারের দাবিতে রাজধানীতে মানববন্ধন ●   রাঙামাটিতে আ’লীগ নেতা সুরেশ কান্তি তংচঙ্গ্যার হত্যা মামলায় আটক-১ ●   ময়মনসিংহে দুই মাদক বিক্রেতা আটক ●   রাণীনগরে বিলে মাছ ধরা নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে দ্বন্দ্ব ●   গাইবান্ধায় তামাকের কালো ছায়া গ্রাস করছে ফসলের ক্ষেত ●   রাঙামাটিতে সন্ত্রাসী হামলায় আহতদের দেখ‌তে গে‌লেন মন্ত্রী বীর বাহাদুর ●   বিপ্লবের মহানায়ক মাস্টারদা সূর্য সেন এর জন্মদিবসে শ্রদ্ধা নিবেদন ●   তদন্ত কমিটির সদস্যরা আজ বাঘাইছড়িতে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন ●   চাটমোহরে লিচু চাষীদের মুখে হাসি
রাঙামাটি, মঙ্গলবার, ২৬ মার্চ ২০১৯, ১১ চৈত্র ১৪২৫


CHT Media24.com অবসান হোক বৈষম্যের
শনিবার ● ৯ মার্চ ২০১৯
প্রথম পাতা » কক্সবাজার » রোহিঙ্গাদের শিবিরে এইডসে আক্রান্তের সংখ্যা-৩১৯ জন : পুরুষের তুলনায় নারীর সংখ্যা বেশি
প্রথম পাতা » কক্সবাজার » রোহিঙ্গাদের শিবিরে এইডসে আক্রান্তের সংখ্যা-৩১৯ জন : পুরুষের তুলনায় নারীর সংখ্যা বেশি
৮৯ বার পঠিত
শনিবার ● ৯ মার্চ ২০১৯
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

রোহিঙ্গাদের শিবিরে এইডসে আক্রান্তের সংখ্যা-৩১৯ জন : পুরুষের তুলনায় নারীর সংখ্যা বেশি

---সিএইচটি মিডিয়া অনলাইন ডেস্ক :: কক্সবাজারের উখিয়া টেকনাফের বিভিন্ন শিবিরের রোহিঙ্গাদের মধ্যে এইচআইভি এইডসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে। আক্রান্তদের মধ্যে পুরুষের তুলনায় নারীর সংখ্যা বেশি।

এ পর্যন্ত এইচআইভি-এইডসে আক্রান্ত ৩১৯ জন রোহিঙ্গাকে চিহ্নিত করা হয়েছে। এর মধ্যে ২৭৭ জন চিকিৎসার আওতায় রয়েছে বলে সংশ্লিষ্টরা বলছেন।

এর আগে গত ফেব্রুয়ারিতেই এইডসে আক্রান্ত অন্তত ৯ জন রোহিঙ্গার সন্ধান মিলেছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যানুযায়ী, বর্তমানে উখিয়া-টেকনাফের শিবিরগুলোয় প্রায় ৯ লাখ ৯ হাজার রোহিঙ্গা অবস্থান করছে।

তাদের মধ্যে গত ফেব্রুয়ারিতে এইডসে আক্রান্ত ৪ পুরুষ ও ৫ নারীকে চিহ্নিত করা হয়। একই সময়ে এ রোগে দুই নারী ও এক পুরুষ মারা যান। তবে ফেব্রুয়ারিতে কক্সবাজারের স্থানীয়দের মধ্যে এইডস আক্রান্ত কাউকে পাওয়া যায়নি।

এ ব্যাপারে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এইডস-এসটিডি কর্মসূচির কর্মকর্তা এসএম আখতারুজ্জামান বলেন, ‘কক্সবাজার, উখিয়া ও টেকনাফ হাসপাতালে এইচআইভি-এইডস শনাক্তকরণ সংক্রান্ত কাউন্সিলিং ও টেস্ট করার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

যাদের শরীরে এইচআইভি ভাইরাস পাওয়া যায় তাদের কক্সবাজার হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা দেওয়া হয়। গত ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত এইচআইভি-এইডসে আক্রান্ত ৪৪৮ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে ৩১৯ জন রোহিঙ্গা এবং ১২৯ বাংলাদেশি রয়েছে।’

আক্রান্তদের মধ্যে ২৭৭ জন রোহিঙ্গা এবং ৭২ বাংলাদেশিকে চিকিৎসার আওতায় আনা হয়েছে। যারা এইডসে আক্রান্ত হয়েছে তাদের মধ্যে ৬৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে ১৯ জন রোহিঙ্গা এবং ৪৪ জন বাংলাদেশি। আক্রান্ত ও মারা যাওয়াদের মধ্যে পুরুষের তুলনায় নারীর সংখ্যা বেশি।

আখতারুজ্জামান আরও বলেন, কক্সবাজারের এলাকার এইচআইভি-এইডসে আক্রান্তদের শনাক্তকরণ ও চিকিৎসা দেওয়া হয় জেলা হাসপাতালের মাধ্যমে। তবে এ রোগে আক্রান্ত রোহিঙ্গাদের ক্যাম্প থেকে হাসপাতালে আনা-নেওয়ার ক্ষেত্রে নানা ধরনের জটিলতার মুখোমুখি হতে হয়। এ কারণে উখিয়া স্বাস্থ্য কেন্দ্রে এইডসে আক্রান্ত রোহিঙ্গাদের শনাক্তকরণ ও চিকিৎসা কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে।

এরই মধ্যে কক্সবাজারে চিকিৎসাসেবা গ্রহণকারী ৮৪ রোহিঙ্গাকে উখিয়া স্বাস্থ্য কেন্দ্রে স্থানান্তর করা হয়েছে। বাকিদের পর্যায়ক্রমে স্থানান্তর করা হবে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের টিবি-ল্যাপ্রোসি এবং এইডস-এসটিডি প্রোগ্রামের লাইন ডিরেক্টর অধ্যাপক ডা. শামিউল ইসলাম বলেন, ‘মিয়ানমারে অন্যান্য জনগোষ্ঠীর তুলনায় রোহিঙ্গাদের এইচআইভি-এইডসে আক্রান্তের হার কম। যদিও তা আমাদের দেশের তুলনায় বেশি। সে জন্য শনাক্ত ও চিকিৎসা কার্যক্রম আরও বিস্তৃত করতে কাজ করছি। রোহিঙ্গা এইডস রোগীদের বেশিরভাগ মিয়ানমারে শনাক্ত হয়েছিল।

কিন্তু সেখানে স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনার কারণে তারা চিকিৎসা পেত না। আমাদের দেশে আসার পর আমরা এইচআইভি আক্রান্তদের শনাক্ত করে চিকিৎসার আওতায় এনেছি। যেন অন্যদের মধ্যে এ ভাইরাস সংক্রমিত না হয়। আমরা প্রিভেশন মাদার টু চাইল্ড নামে একটি প্রোগ্রাম চালু করেছি। যার আওতায় গর্ভবতী নারীদের এইচআইভি পরীক্ষা করা হচ্ছে। একই সঙ্গে কেউ শারীরিক নির্যাতনের শিকার এলে তখনও এ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছি।

এ ছাড়া ঝুঁকিপূর্ণ জনগোষ্ঠীর কেউ কোনো কারণে চলে এলে তাদের পরীক্ষা করছি। বৈশ্বিক নিয়ম অনুযায়ী এইচআইভি শনাক্তের আগে কাউন্সিলিং করতে হয়। আমরা সেই আলোকে কাজ করছি।’

জানা গেছে, এশিয়ার মধ্যে যে কটি দেশ এইচআইভির জন্য ঝুঁকিপূর্ণ তার মধ্যে মিয়ানমার অন্যতম। জাতিসংঘের এইডসবিষয়ক প্রতিষ্ঠান ইউএনএইডসের তথ্য মতে, দেশটিতে বর্তমানে ২ লাখ ৩০ হাজার থেকে ২ লাখ ৬০ হাজার এইচআইভি-এইডস আক্রান্ত মানুষ রয়েছে। দেশটির প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে দশমিক ৮ ভাগ এইডসে আক্রান্ত।

এ ছাড়া শিরায় ইনজেকশন গ্রহণকারীদের মধ্যে ২৩ শতাংশ, নারী যৌনকর্মীদের মধ্যে ৬ দশমিক ৩ শতাংশ এবং সমকামীদের মধ্যে ৬ দশমিক ৬ শতাংশ এই ভাইরাসে আক্রান্ত। সেই হিসাব অনুযায়ী বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গাদের মধ্যে ২ থেকে আড়াই হাজার এইডস রোগী থাকতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এইডস-এসটিডি কর্মসূচির কর্মকর্তারা বলেছেন, রোহিঙ্গারা যদি আমাদের দেশের স্থানীয় লোকদের সঙ্গে মেলামেশার সুযোগ পায়, তা হলে এ রোগ ছড়াতে পারে। তাই রোহিঙ্গারা যেন কক্সবাজারে ছড়িয়ে না পড়ে সে জন্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী তাদের ক্যাম্পে রাখার ব্যবস্থা নিয়েছে।

যাদের এইচআইভি শনাক্ত হচ্ছে তাদের একা বা স্বজনের সঙ্গে কক্সবাজার হাসপাতালে আসতে দেওয়া হয় না। এই আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার হাসপাতালে নিয়ে যান আইএমও কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। সূত্র : বাংলাদেশ টুডে (bangladeshtoday.com)



আর্কাইভ

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)