শিরোনাম:
●   বাংলাদেশের ডা. নাসের খান অ্যামেরিকায় ‘ফ্রম দি হার্ট -২০১৯’ পুরস্কারে ভূষিত ●   চাকুরী দেবার কথা বলে ২ কোটি টাকার প্রতারণায় সানোয়ার আটক ●   ঈশ্বরগঞ্জে হত্যা মামলায় ১৬ বছর পর দুইজনের ফাঁসির রায় ●   আত্রাইয়ে আলোক ফাঁদ পদ্ধতি কমছে কীটনাশক ব্যবহার ●   বাগেরহাটে সরকারী ১২ পুকুর খননে চলছে পুকুর চুরি ●   রাস্তা পাকাকরণে ব্যবহার হচ্ছে নিম্নমানের ইট ●   রাজশাহীতে সম্প্রীতির হাওয়া ●   রোয়াংছড়ি নোয়াপতং খায়াংম্রং পাড়ায় অ‌গ্নিকা‌ন্ড ●   বিধবা-বয়স্ক ও প্রতিবন্ধী ভাতা চেয়ারম্যান-মেম্বারের পেটে ●   ৭ বছরের শিশুকে বলাৎকারের অভিযোগে রাজুকে চুল কেটে জুতার মালা গলায় দিয়ে ঘুরিয়েছে গ্রামবাসী ●   রাঙামাটিতে জাতীয় স্বাস্থ্যসেবা সপ্তাহ উপলক্ষে র‌্যালি ●   গাইবান্ধায় ৩৯৭ বোতল ফেন্সিডিলসহ আটক-৩ ●   একধিক ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে প্রধান শিক্ষক সালাম গ্রেফতার ●   ময়মনসিংহে সিটি নির্বাচনে মেয়র পদে নৌকার প্রার্থী টিটুকে ‘বিনা ভোটে’ জয়ী ঘোষণা ●   দেশব্যাপী ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালন ●   রুমায় বর্নাঢ্য আয়োজনে মৈত্রী পানি বর্ষণ সমাপ্ত ●   বিশ্বনাথে ইউএনও’র আচরণে ক্ষুব্ধ সাংবাদিকরা ●   ছিনতাই হওয়া মাইক্রোবাস জয়পুরহাটে উদ্ধার ●   বান্দরবানে প্রান্তিক লেকের পানিতে ডুবে বন্য হাতির মৃত্যু ●   মহালছড়িতে সাংগ্রাই উপলক্ষে মৈত্রী পানি খেলা ●   ঐতিহ্যবাহী গোপাল চাঁদ বারুণী মেলায় লাখো ভক্তের পদচারনায় মুখরিত ●   ‘স্বাস্থ্য সেবা অধিকার, শেখ হাসিনার অঙ্গীকার’ শ্লোগানে ঝিনাইদহে স্বাস্থ্যসেবা সপ্তাহের উদ্বোধন ●   চাটমোহরে স্কুলের দেয়ালে মৌচাক ●   বান্দরবানে দুদকের গণশুনানি ●   রাউজানে ‘সম্ভবা’ নামক স্মারণিকার মোড়ক উন্মোচন ●   মহালছড়িতে বিজু কাপ ফুটবল টুর্ণামেন্টের সমাপণী ●   ময়মনসিংহ সিটির প্রথম নির্বাচনে ভোট ছাড়াই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আ’লীগের ইকরামুল হক টিটু মেয়র নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন ●   কুশিয়ারা নদীর ভাঙন রোধের জিও ব্যাগ ফেলার কার্যক্রমের উদ্বোধন ●   রাজশাহী সিটির হোল্ডিং ট্যাক্স আদায় পক্ষ কর্মসূচির উদ্বোধন ●   সাংবাদিকদের বের করে দিয়ে এমপির মতবিনিময় সভা
রাঙামাটি, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০১৯, ৬ বৈশাখ ১৪২৬


CHT Media24.com অবসান হোক বৈষম্যের
মঙ্গলবার ● ২ জানুয়ারী ২০১৮
প্রথম পাতা » চট্টগ্রাম বিভাগ » সদ্ধর্ম জাগরণ ও উন্নয়ন
প্রথম পাতা » চট্টগ্রাম বিভাগ » সদ্ধর্ম জাগরণ ও উন্নয়ন
২৬৪ বার পঠিত
মঙ্গলবার ● ২ জানুয়ারী ২০১৮
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

সদ্ধর্ম জাগরণ ও উন্নয়ন

---রতিকান্ত তঞ্চঙ্গ্যা :: (পূর্বে প্রকাশের পর) ১৮৫৭ সালে চট্টগ্রামের রাজা নগরে চাকমা রানী কর্তৃক মহামহোপাধ্যায় ভিক্ষু সারমেধ মহাস্থবিরকে রাজকীয় সম্মানে যেভাবে অভিষেক দিয়ে সংঘরাজ পদে ভুষিত করেছিলেন তার পরবর্তী ঠিক একশত বছর পর অর্থাৎ ১৯৫৮ সালে পুরোনো রাঙামাটি রাজমন্দির আঙ্গিনায় চাকমা রাজা ত্রিদিব রায় চট্টগ্রামের বিশিষ্ট গুণী ভিক্ষু সম্মতিতে অগ্রবংশ স্থবিরকে সংঘরাজ পদে ভুষিত করেন। পার্বত্য চট্টগ্রামের সার্থক জনম মহান এই ব্যক্তি বৌদ্ধধর্ম প্রচার, দীক্ষাদান, শাসননীতি এবং অবিভক্ত সংঘরাজ, নিকাই তারই শ্রেষ্ঠ অবদান। ১৯৫৮ সালে পুরাতন রাজবিহার থেকে ভিক্ষু শ্রামনগণ রাঙামাটি শহরে সর্ব প্রথম পিন্ডচারণ শুরু করেন সুশৃংখলভাবে। ১৯৫৮/৫৯ সালে পার্বত্য চট্টগ্রাম বৌদ্ধ সমিতি প্রতিষ্ঠা করেন। এরপর পার্বত্য চট্টগ্রাম ভিক্ষু সমিতি গঠন করেন। তার নিরলস ও দুরুহ কর্ম প্রচেষ্ঠায় নির্মিত হল ছাত্রাবাস। অনাথ দুস্থ ছাত্র পড়া লেখায় শিক্ষিত হতে লাগল। তার অচ্যুতানন্দ ও কোন্ডান্য নামে সাত বছরের প্রথম দুই বিজ্ঞ শ্রামন বিভিন্নধর্ম সভায় ধর্মীয় গাথা পাঠ করে মানুষকে মুগ্ধ করে শ্রদ্ধা অশ্রু ফেলে দিত। পূজা পদ্ধতি, গাঁথা, সুত্রপাঠ, শীল আচরণ, শুদ্ধরুপে উচ্চারণ ও শ্রুতিমধুর সুরে বলার আয়ত্বকরন একমাত্র ভিক্ষু অগ্রবংশের মহৎ অবদান। আচরণ দক্ষতা লাভ করে শ্রমন ভিক্ষু সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে বিভিন্ন স্থানে বৌদ্ধ বিহার নির্মিত হতে শুরু করল। কঠিন চীবর দান, অষ্ট পরিষ্কার দান, সংঘদান ইত্যাদি সহ বুদ্ধপূজা, সীবলী পূজা,কল্পতরু যাবতীয় পূণ্যকর্ম একমাত্র তারই অবদান। শিশু কিশোরদের জন্য বাংলায় পুষ্পপুজা, প্রদীপ পুজা, বন্দনা, গাথা বা গীতি কবিতা, উদ্বোধনী সংগীত ইত্যাদি পুস্তিকা ছাপিয়ে বিতরণ করেছিলেন। এছাড়াও চাকমা ভাষায় বুদ্ধ বন্দনা, গুরু বন্দনা, সূত্র এবং শীল পদ্ধতি, উৎসর্গ আর আচরণ বিধি সৃষ্টি করে মানুষকে দিয়েছিলেন অভুতপূর্ব সম্যকজ্ঞান।

উল্লেখযোগ্য ধর্মসভা, ধর্মীয় উৎসব এবং পূণ্যকর্ম মানুষ দেখতে পেল, সম্প্রসারিত হতে লাগল বৌদ্ধ ধর্ম নতুন জাগরণ। ওজা, বৈদ্য, রাউলীদের ধর্মকাম, গাং পূজা, ভুত পুজা, থানমানা, ফি-দশা, ইত্যাদি নিরুপন বা নিবারন নামে মিথ্যাদৃষ্টি বা অকুশল কর্মপরিত্যাগ করে দয়া , মানবতা, এবং সদ্ধর্মকে ধারন করল। ৩৩৪ নং কুক্যাছড়ি মৌজার খ্যাং জাতির নেতা মংবু মাষ্টার প্রবজ্যা গ্রহণ করলেন। ১১৯ নং ভাজ্যাতলী মৌজার হেডম্যান মুরুং সর্দার হৃদয় রঞ্জন রোয়াজা দল নিয়ে এলেন রাজগুরু অগ্রবংশের পদতীর্থে। কিছু সংখ্যক তিপুরা জাতি, খ্রীষ্টান ধর্মের অনুসারী আর শীব ধর্মের পূজারীএলেন বৌদ্ধ ধর্শ দীক্ষা নিতে। উদ্ভব হল দশশীলধারীসাধুমা নামে ভিক্ষুনী। অবশ্য মগ জাতির সাধুমা বহু আগে প্রত্যক্ষ করা গিয়েছে।তারা তাদেও মগ ক্যাং পাশে অবস্থান করতেন।আমার দেখা মতে,ভৈরব তালুকদারের পত্নী, কালাবী মা, কদম্ব মা, বান্দরী মা, রুক্ষীনী মা, রজনী বালা, বুড়ি মা সহ আরো কয়েকজন পূণ্যবতী ব্রক্ষচারিণী সাধুমা সেবা সাধন করে জীবণ ধন্য করেছিলেন। তাঁর প্রকাশিত পুস্তক, সমবায় বুদ্ধপাসনা, পরিণাম (নাটক), শ্রামণ্য কর্তব্য, চাকমা কদান্দী মঙ্গলসূত্রসহ ৬টি রাজ বিহারে এবং পরবর্তীতে বিদর্শন ভাবনা ও বুদ্ধ সামন্তিকা-১ম খন্ড প্রকাশ করেন। তার প্রতিষ্ঠিত পার্বত্য বৌদ্ধ সমিতির উদ্যোগে সর্বপ্রথম স্মারক “শুভবানী” গ্রন্থ প্রকাশিত হয় ১৯৭৪ সালে। এছাড়া বিভিন্ন সংকলনে বহু লেখা এবং বোধী ভারতী, নালন্দা, পারমী, কৃষ্টি, পার্বত্য বাণীসহ বহু সংকলনে নিয়মিত লেখক। তিনি বাংলা, পালি, সংষ্কৃতি, বার্মা ও ইংরেজি ভাষা জানতেন। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর ১৬ ফেব্রুয়ারী ১৯৭৩ সালে রাষ্ট্র মহানায়ক শেখ মুজিবুর রহমান রাঙামাটি আগমন করেন। বিশাল জনসমুদ্র এই জনসভায় রাজগুরু অগ্রবংশ মহাস্থবির পবিত্র ত্রিপিটক পাঠ করেন। সদ্ধর্মের জন্য তিনি গিয়েছিলেন মাইলের পর মাইল উচু নিচু পথ হেটে। তখনকার সময়ে গাড়ী ছিলনা, ইঞ্জিন চালিত বোট ছিল শুধুমাত্র কর্ণফুলী নদীতে ছোট নৌকায় বসে গিয়েছিলেন রাত দিন। চেঙ্গী, মাইনী, ঠেগা, কাচালং, ঠেগা, ভুষনছড়া, কাটলী,পাবলাখালী, রামগড়, দীঘিনালা, পানছড়ি, জুরাছড়ি, বরকল, নান্যাচর, মহালছড়ি, বালুখালী, মগবান, সুবলং ইত্যাদি উজান বেয়ে। কাউখালী, রস্যাবিল, বন্দুকভাঙ্গা, ইত্যাদি বহু গ্রামে।

এছাড়াও চট্টগ্রাম অঞ্চলে ধর্মীয় অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত হয়ে যোগ্য মর্যাদায় বক্তব্য রাখতেন। চট্টগ্রামে তারঅনেক ত্রিপিটকধারী পন্ডিত ও শীলবান সতীর্থ ভিক্ষু রয়েছেন। তিনি মাইনী উপত্যকা দিঘিনালায় ১৯৬২ সালে শ্রমণ রথীন্দ্রকে কর্মবাক্য পাঠ করে উপসম্পদা দিয়েছিলেন। নাম দিয়েছিলেন ভিক্ষু সাধনানন্দ (বনভান্তে)।(“আলোকিত তঞ্চঙ্গ্যা ভিক্ষু” গ্রন্থ থেকে চলবে)



আর্কাইভ

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)