শিরোনাম:
●   রাজস্থলীতে মৎস্য খাদ্য উপকরণ বিতরণ ●   সাব-রেজিস্ট্রার হত্যা মামলায় কুষ্টিয়াতে ৪ জনের ফাঁসি ●   ময়মনসিংহ মেডিকেলের করোনা ইউনিটে করোনা উপসর্গে আরও ২ জনের মৃত্যু ●   ব্যাংক ঋন গ্রহনের ক্ষেত্রে মুক্তিযোদ্ধাদের জিম্মাদার হিসেবে গন্য করার আহবান ●   ইউ’পি চেয়ারম্যানসহ ঘোড়াঘাটে ৬ জুয়াড়ি আটক ●   করোনায় মারা গেলেন তায়েফ ●   ময়মনসিংহ মেডিকেলের করোনা ইউনিটে করোনা উপসর্গে আরও ৪ জনের মৃত্যু ●   গলায় ছোরা চালিয়ে যুবকের আত্মহত্যা ●   রাজস্থলীতে সেনাবাহিনীর উদ্যোগে মতবিনিময় সভা ●   পানছড়িতে ভারতীয় অবৈধ মালামাল জব্দ ●   চট্টগ্রামে অনুষ্ঠিত হলো উদ্যোক্তাদের সম্মেলন ●   তৃনমূল নেতাকর্মীরাই আওয়ামীলীগের প্রান : তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ●   আত্রাইয়ে শিশুদের জন্য নির্মিত হলো দৃষ্টিনন্দন শিশুপার্ক ●   চট্টগ্রামে র‌্যাবের অভিযানে অস্ত্রসহ আটক-২ ●   ময়মনসিংহ মেডিকেলের করোনা ইউনিটে করোনা ও উপসর্গে আরও ২ জনের মৃত্যু ●   বান্দরবানে পর্যটকবাহি বাসে গুলি : আহত-২ ●   কাকের প্রতি ‘বিরল ভালবাসা’ আত্রাইয়ের সায়মা বিবি’র ●   পোকা নিধনে ‘আলোক ফাঁদ’ ●   ঔষধ দিয়ে মিলছে না সুফল ●   ময়মনসিংহ মেডিকেলের করোনা ইউনিটে করোনা উপসর্গে আরও ১ জনের মৃত্যু ●   বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি নাটোর জেলা কমিটির বর্ধিত সভা ●   কাভার্ড ভ্যান চাপায় দুই বন্ধু নিহত ●   রাউজানে রাস্তা খনন কাজের সময় পাইপ ফেটে বের হয়েছে গ্যাস ●   যুবককে গলা কেটে মোটরসাইকেল ছিনতাই ●   মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে মানববন্ধন ●   কুষ্টিয়ায় প্রধানমন্ত্রীকে ফেসবুকে কটূক্তি করায় যুবক আটক ●   বিশ্বনাথে দিন দুপুরে চুরি- নগদ টাকা স্বর্ণলংকার লুট ●   ভাড়া ভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের মেয়াদ আরও পাঁচ বছর বৃদ্ধি করায় বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির নিন্দা ●   ময়মনসিংহ মেডিকেলের করোনা ইউনিটে করোনা ও উপসর্গে আরও ৬ জনের মৃত্যু ●   ইভ্যালির সিইও এবং চেয়ারম্যান গ্রেপ্তার
রাঙামাটি, বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৭ আশ্বিন ১৪২৮


CHT Media24.com অবসান হোক বৈষম্যের
বুধবার ● ১৮ আগস্ট ২০২১
প্রথম পাতা » প্রধান সংবাদ » নবীগঞ্জের পাহাড়ের এটেঁল মাটির ছিকর প্রায় এখন বিলুপ্তির পথে
প্রথম পাতা » প্রধান সংবাদ » নবীগঞ্জের পাহাড়ের এটেঁল মাটির ছিকর প্রায় এখন বিলুপ্তির পথে
৯৪ বার পঠিত
বুধবার ● ১৮ আগস্ট ২০২১
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

নবীগঞ্জের পাহাড়ের এটেঁল মাটির ছিকর প্রায় এখন বিলুপ্তির পথে

ছবি : সংবাদ সংক্রান্ত-উত্তম কুমার পাল হিমেল।উত্তম কুমার পাল হিমেল, নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি :: ছিকর শিরোনাম দেখে হয়তো অনেকেই ভাবছেন এটি আবার কোন ধরনের খাবার ? তাও মাটি দিয়ে তৈরী হতো, এটা কীভাবে সম্ভব ? অবাক হওয়ারই কথা। অবাক হলেও কথাটি সত্যি। বর্তমান প্রজন্মের কাছে ছিকর শব্দটি নতুন মনে হলে প্রবীনদের কাছ থেকে জেনে নিতে পারেন। কিন্তু কালের বিবর্তনে নবীগঞ্জ উপজেলার পাহাড়ী অঞ্চল খ্যাত দিনারপুর পরগনার ঐতিহ্যবাহী ছিকর শিল্প এখন প্রায় বিলুপ্তির পথে। আশি দশকের পূর্বে ওই অঞ্চলের বেশ কয়েকটি পরিবার পাহাড়ের এটেঁল জাতিয় মাটি দিয়ে এক প্রকার আহার্য্য সামগ্রী তৈরি করে বিক্রি লব্দ অর্থ দিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতেন। বিভিন্ন জিনিস পত্রের সাথে ইহা ফেরি করে নগদ টাকা পয়সা ও চাউল দিয়ে বিক্রি করা হত বলে জানা যায়।
উল্লেখ্য, ছিকর একটি ফারসি শব্দ। ছিয়া মানে কালো আর কর মানে মাটি। ছিয়াকর শব্দটিই পরে ছিকর হয়ে গেছে। ক্ষিধা নিবারণের জন্য নয়, বরং এক ধরণের অভ্যাসের বশে লোকজন তা খেয়েছে বলে প্রবীণ লোকদের সাথে কথা বলে জানা গেছে। ছিকর হচ্ছে এক ধরণের পোড়া মাটি। পাহাড়ি টিলার মাটি দিয়ে বিশেষ এক পদ্ধতিতে আগুনে পুড়িয়ে তৈরি হয় ছিকর। ছিকর বিভিন্ন আকৃতির হয়ে থাকে। কোনটি দেখতে বিস্কুটের মত কোন কোন ছিকর আছে ললি পপের মত লম্বা আবার কোন ছিকর ছোট লজেন্সের মতো।
এবার ছিকরের খোজেঁ গিয়ে পাওয়া গেল একজন ছিকর শিল্পীকে। তিনি দিনারপুর পরগনার গজনাইপুর ইউনিয়নের মায়া রানি । তিনি বাপ দাদার আমল থেকেই ছিকর তৈরী করে আসছেন।
মায়া রানি জানান, পাহাড়, হাওর আর বিজনা নদী মিলিয়ে কায়স্থগ্রাম। এক সময় বিজনায় বড় বড় নৌকা চলত। পাইকাররা নৌকা বোঝাই করে ছিকর নিয়ে যেতেন দূর-দূরান্তে। তখন সুদিন ছিল ছিকরের। দিন-রাত কাজ করেও ঝরনা রানির পূর্বপুরুষরা পাইকারদের চাহিদা মেটাতে পারতেন না। সেটা শত বছর আগের কথা। ছিকরের মাটিকে লোকে ডাকে ছিকনা মাটি। এক ধরনের এঁটেল মাটি। দিনারপুরের কান্দিগাঁও গ্রামের পাহাড়ে মেলে এ মাটি। মায়া রানি বললেন, ছিকর তৈরিতে আসলে লাগে দক্ষতা। মাটি শুকানো ও পোড়ানোতেই আসল কারসাজি। ঠিকভাবে না হলে স্বাদ আর ঘ্রাণ কোনোটাই পাওয়া যায় না। ছিকনা মাটি তুলে আনাটাও গুরুত্বপূর্ণ কাজ। টিলায় গর্ত খুঁড়ে লম্বা বাঁশের সাহায্যে গভীর থেকে তুলে আনা হয় এ মাটি। রাতের বেলা মাটিগুলো একটি গামলায় নিয়ে পানিতে ভিজিয়ে রাখা হয়। সারা রাত ভিজে মাটি নরম হলে ছাঁচে ফেলে প্রথমে তৈরি করা হয় । তারপর কাঠের হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে চ্যাপ্টা করা হয়। এরপর চাকু দিয়ে বিস্কুটের মতো ছোট ছোট করে টুকরা করা হয়। তবে গ্রাহক চাহিদা অনুযায়ী ললিপপ বা লজেন্স আকৃতির ছিকরও হয়ে থাকে। কাটার পর কাঁচা ছিকরগুলো রোদে দেওয়া হয়। দু-এক দিন শুকানোর পর এক ধরনের বিশেষ চুলায় এগুলো পোড়ানো হয়। তারপর একটি মাটির হাঁড়ির নিচের অংশ ভেঙে সেখানে লোহার শিক দিয়ে তৈরি চালুনি বসানো হয়। ছিকরগুলো ওই চালুনির ওপর বসানো হয়। তারপর হাঁড়িটি রাখা হয় একটি মাটির গর্তে। ধানের তুষ দিয়ে আগুন জ্বালানো হয় গর্তে। সতর্কতার সঙ্গে ছিকরের গায়ে শুধু ধোঁয়া লাগানো হয়। দুই ঘণ্টা পর ছিকর কালচে রং ধারণ করে। সুঘ্রাণ তৈরি হয়।
গর্ভবতীদের প্রিয় খাদ্য:
একসময় সিলেট অঞ্চলে, বিশেষ করে হবিগঞ্জ জেলার গ্রামাঞ্চলে ছিকরের প্রচুর চাহিদা ছিল। দোকানেও বিক্রি হতো। হকাররা বাড়ি বাড়িও পৌঁছে দিতেন। নগদ টাকায় বা চালের বিনিময়ে ছিকর কেনাবেচা হতো। গর্ভবতী মায়েদের কাছে জনপ্রিয় ছিল ছিকর। বিশ্বাস করা হতো এটা খেলে রোগবালাই সারে কিন্তু এখন এটিকে অস্বাস্থ্যকর হিসেবেই দেখা হয়।
এখনো লন্ডন যায়:
ঝরনা রানি জানান, অনেক জায়গা থেকেই লোকে ছিকর খুঁজতে আসেন। মোবাইলেও যোগাযোগ করেন কেউ কেউ। প্রবাসীরা লন্ডন ফেরার আগে ছিকর নিতে আসেন। কেউ কেউ আত্মীয়দের মাধ্যমে লন্ডন পাঠাতে বলেন। প্রতি মাসে বিদেশের একাধিক ফরমায়েশ পান। গত মাসেই পাশের দেবপাড়া ইউনিয়নের এক লন্ডনপ্রবাসী এবং আরেক আমেরিকা প্রবাসী তাঁর কাছ থেকে ১০ কেজি করে ছিকর নিয়েছেন। এখন তিনি ২০০ টাকা কেজি দরে ছিকর বিক্রি করেন। তবে প্রবাসীদের ফরমায়েশ পেলে বকশিশ পান বেশি।
ছিকর নিয়ে গবেষণা:
নবীগঞ্জ উপজেলার কমলাপুর গ্রামের ছিকর ব্যবসায়ীরা হরেন্ড শব্দকর জানান, সিলেট অঞ্চলে একসময়ের জনপ্রিয় খাবার ছিল এটি। শত বছরের পুরনো এই ছিকরশিল্প। এখন অবশ্য বিলুপ্তপ্রায়। নবীগঞ্জ ছাড়াও বাহুবল, বানিয়াচং এবং মাধবপুর উপজেলায়ও ছিকর তৈরির কারিগর ছিল। তিনি বলেন- লোকখাদ্যে হবিগঞ্জ জেলার মানুষের আলাদা একটি ঐতিহ্য রয়েছে। অতীতে এ খাদ্যের প্রতি মানুষের নিজস্ব একটি স্বকীয়তা ছিল। খাদ্যগুলো হবিগঞ্জ ছাড়াও বিভিন্ন জেলায় ত্রিশ শতক থেকে নব্বই শতক পর্যন্ত অনেক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছিল।
হরেন্ড এর সংগ্রহ করা তথ্য মতে- কোন এলাকার ছিকরে খাই মাখানোর সময় গোলাপজল, আদার রস ইত্যাদি মেশানো হয়। যা মাটির সাথে পুড়ানোর পর ভিন্ন এক স্বাদের জন্ম দেয়। স্থানীয় কুমার সম্প্রদায় বা মৃৎ শিল্পীদের কেউ কেউ ছিকর তৈরি করে বাজারজাত করতো। দিনারপুরে পাহাড়ি টিলা থেকে একসময় বিভন্ন এলাকার কুমাররা এসে মিহি মাটি সংগ্রহ করত। কিন্তু আজ কাল কেউ আর মাটি সংগ্রহ করতে যায় না। উক্ত টিলা ছাড়াও বানিয়াচং, বাহুবল ও মাধবপুরের বিভিন্ন জায়গায় ছিকরের উপযোগি মাটি আহরণের ক্ষেত্র আছে।
নবীগঞ্জের পল্লী গ্রামের প্রবীনদের কাছ থেকে কথা বলে জানাযায় ,মাটিকে ভিজিয়ে নরম করে রুটির মত করে ছোট ছোট টুকরোর মাধ্যমে বিশেষ প্রক্রিয়ায় শুধু মাত্র আগুনের ধোয়া দিয়ে পুড়িয়ে তৈরী করা হত। যা এ অঞ্চলের গ্রামগুলোতে ছিকর নামে পরিচিত। ৭০/৮০ দশকে হবিগঞ্জে প্রচুর পরিমাণে এই ছিকর পাওয়া যেত। গর্ভবতী মহিলাদের কাছে ইহা একটি পছন্দনীয় সুস্বাদু খাদ্য ছিল। তাদের ধারণা ছিল এটা খেলে বিভিন্ন রোগ বালাই থেকে বেঁচে থাকা যাবে’। আধুনিক শিক্ষিত মানুষরা ছিকর খাওয়াকে অস্বাস্থ্যকর ও রুচি বিরুদ্ধ বিবেচনা করার কারণে ছিকর এখন বিলুপ্তির পথে।
উপজেলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) উত্তম কুমার দাশ জানান, ছিকর এখন বিলুপ্তির পথে বর্তমান সময় ছিকর খাদ্য হিসাবে কতটুক স্বাস্থ্যকর । এখন মানুষের ধারণা এটি একটি কুসংস্কার।



google.com, pub-4074757625375942, DIRECT, f08c47fec0942fa0

আর্কাইভ

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)