শিরোনাম:
●   মিরসরাইয়ে বিনামূল্যে চক্ষু চিকিৎসা সেবা ●   মোক্তার আলী ফাউন্ডেশন মেধাবৃত্তির পুরস্কার বিতরণ ●   বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির দশম কংগ্রেস ৬ - ৯ জানুয়ারী ২০২৩ পুনঃনির্ধারণ ●   মহালছড়ি সেনাবাহিনী কর্তৃক ১০০ বিঘা গাঁজা ক্ষেত ধ্বংস ●   মিজোরামে আশ্রিত শরণার্থীদের ফিরিয়ে আনুন : ইউপিডিএফ ●   রাউজান সিটি প্লাজায় প্রবাসীর বাসায় দুর্ধষ চুরি ●   লুটপাটের ধারা চলতে দিলে দেশ দেউলিয়া হয়ে পড়তে পারে ●   গুইমারায় যুবকের গলা কাটা লাশ উদ্ধার ●   ঢাকায় পার্বত্য শান্তি চুক্তির ২৫ বছর পূর্তি উদযাপিত হলো ●   সালাম মুর্শেদী অবৈধভাবে বাড়ী দখল করেননি, তদন্ত রিপোর্ট অসম্পূর্ণ ও অনুনোমোদিত ●   নিখোঁজের ২১দিন পর শিশু ইব্রাহিমের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার ●   পানছড়িতে ১২ শিক্ষার্থীর জিপিএ ৫ পেয়েছে ●   ঈশ্বরগঞ্জে কৃষকের কচু খেত কেটে বিনষ্ট ●   শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের চেষ্টায় রাউজানে বখাটে আটক ●   বিশ্বনাথে শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যা করে লাশ ঝুলিয়ে রাখে ঘাতক কার্তিক ●   পার্বত্য চুক্তি সংশোধনের দাবিতে নাগরিক পরিষদের সংবাদ সম্মেলন ●   সরকারের দ্বিমুখী নীতির কারণে পার্বত্য শান্তিচুক্তি বাস্তবায়ন হয়নি : সাইফুল হক ●   মিরসরাইয়ে মাড়াইয়ের জন্য রাখা ধানে অগ্নিকাণ্ড ●   চুয়েটে শেখ হাসিনার উন্নয়ন, নারীর ক্ষমতায়ন শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত ●   বগুড়ায় সবজি প্রদর্শনী ও কৃষক মাঠ দিবস ●   পার্বত্য চুক্তির রজত জয়ন্তী : রাষ্ট্রিয় সুযোগ সুবিধা ৯০% ভোগ করছেন তিন জনগোষ্ঠীর লোকজন বাকিরা ১০% পার্বত্য চুক্তিতে বিশাল ধরনের বৈষম্যে ●   রাঙামাটিতে ২৮টি পাড়াকেন্দ্রে ডিজিটাল ক্লাসরুম উপকরণ বিতরণ ●   সাংবাদিক কণ্যা জেরিন এসএসসিতে গোল্ডেন জিপিএ ৫ ●   মিরসরাইয়ে ১০ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে দুর্ধর্ষ চুরি ●   বিয়ের আগের দিন লন্ডন প্রবাসী তরুণীর মর্মান্তিক মৃত্যু ●   ঘোড়াঘাটে মানসিক ভাবে বিপর্যস্ত কলেজ ছাত্রের আত্মহত্যা ●   দরিদ্র ঘরের মেয়ে সাদিয়ার জিপিএ-৫ পাওয়ার সাফল্য ●   মোরেলগঞ্জে শেখ রাসেল শিশু পার্ক উদ্বোধন ●   পার্বত্য চুক্তির ২৫ বছর পূর্তিতে সাংবাদিক মকছুদ আহমেদকে সম্মাননা প্রদান প্রয়োজন মনে করেন সুশীল সমাজ ●   বরিশালের ৬ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মিথ্যা মামলা
রাঙামাটি, রবিবার, ৪ ডিসেম্বর ২০২২, ২০ অগ্রহায়ন ১৪২৯



CHT Media24.com অবসান হোক বৈষম্যের
সোমবার ● ১৭ অক্টোবর ২০২২
প্রথম পাতা » তথ্যপ্রযুক্তি » দায়সাড়াভাবে চলছে সরকারি ওয়েবসাইট
প্রথম পাতা » তথ্যপ্রযুক্তি » দায়সাড়াভাবে চলছে সরকারি ওয়েবসাইট
৬৭ বার পঠিত
সোমবার ● ১৭ অক্টোবর ২০২২
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

দায়সাড়াভাবে চলছে সরকারি ওয়েবসাইট

ছবি : সংবাদ সংক্রান্ত উত্তম কুমার পাল হিমেল, নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি :: ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার সংকল্প নিয়ে একের পর এক ডিজিটাল কার্যক্রম শুরু করেছে বর্তমান সরকার। ইন্টারনেট সুবিধা গ্রামীণ মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে ইউনিয়ন পর্যায়েও ডিজিটাল সেন্টার চালু করা হয়েছে। সরকারের ডিজিটাল কার্যক্রমে অন্যতম একটি হলো ‘তথ্য বাতায়ন’। তথ্য জানার অধিকার সবার। জেলা-উপজেলার কোথায় কি আছে, কি সেবা কিভাবে পাওয়া যাবে? তথ্য নিয়ে স্থান-কাল-পাত্র জেনে সেবা গ্রহণ করলেই সঠিক সেবা পাওয়া সম্ভব।
(http://nabiganj.habiganj.gov. bd/bn) নবীগঞ্জ উপজেলার তথ্য বাতায়নে এই উপজেলার পরিচিতি, ইতিহাস ও ঐতিহ্য, ভৌগোলিক ও অর্থনীতিসহ অনেক অজানা এবং প্রয়োজনীয় তথ্য রয়েছে। কিন্তু বেশীরভাগ তথ্যেরই অভাব রয়েছে এই পোর্টালটিতে। জাতীয় তথ্য বাতায়নের নবীগঞ্জের বিভিন্ন সরকারি দফতর-অধিদফতরের তথ্য আপডেট হচ্ছে না দীর্ঘ দিন ধরে। ফলে ডিজিটাল সেবা প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন নবীগঞ্জের জনসাধারণ।
নবীগঞ্জ উপজেলা তথ্য বাতায়ন যে দায়সারাভাবে চলছে তা এই ওয়েবসাইটটি ভিজিট করলেই বোঝা যায়। চলতি বছরের ১১ অক্টোবর ওয়েবসাইটটি শেষ হালনাগাদ করা হলেও প্রয়োজনীয় সকল তথ্য মিলছে না এতে, এছাড়া ভূল তথ্যেরও হিসেব নেই ওয়েবসাইটটিতে। দায়সারাভাবে সরকারি এই ওয়েবসাইটটি পরিচালিত হওয়ায় তথ্য বিভ্রাটে পরিণত হয়েছে নবীগঞ্জ উপজেলা তথ্য বাতায়ন।
অভিযোগ রয়েছে- জাতীয় তথ্য বাতায়নে নবীগঞ্জ উপজেলার অধিকাংশ তথ্যই মিলছে না। দায়সারাভাবে চলছে ওয়েবসাইটটির হালনাগাদ কার্যক্রম, নিয়মিত অফিস না করার অভিযোগও রয়েছে উপজেলা সহকারী প্রোগ্রামার কাজী মঈনুল ইসলামের বিরদ্ধে। তথ্যের মধ্যে মিলছে কেবল সরকারি বিভিন্ন দফতরের সেবাসমূহের। বর্তমানে কর্মরত কর্মকর্তাগণের পরিচিতিও মিলছে না এতে। তিন/চার বছর আগে চলে যাওয়া কর্মকর্তার নাম/ছবি/নম্বর এখনো দেখাচ্ছে সেখানে। তথ্য বাতায়নে নবীগঞ্জের এই হাল সচেতন মহলে প্রশ্ন তুলেছে।
স্থানীয়রা অভিযোগ করছেন- সংশ্লিষ্ট দফতরের কর্মকর্তাদের উদাসীনতা আর অদক্ষতার জন্যই জাতীয় তথ্য বাতায়নের মতো সরকারের একটি ভাল উদ্যোগ কেবল নাম পরিচয়ের মধ্যেই সীমাবদ্ধ রয়েছে। তথ্য বাতায়ন ঘেটে নবীগঞ্জের প্রয়োজনীয় তথ্য না পেয়ে অনেকেই শূন্য তথ্য দেখে বিস্মিত হয়েছেন।
নবীগঞ্জ উপজেলা তথ্য বাতায়নটি ঘুরে দেখা যায়- হোম পেইজে আমাদের সর্ম্পকে একটি ক্যাটাগরি রয়েছে এতে কর্মকর্তাগন নামের একটি অপশন আছে। এতে ক্লিক করলে দেখা যায় শুধু বর্তমান ইউএনও ইমরান শাহরিয়ারের নাম ও প্রোফাইল দেখাচ্ছে। আর কোন কর্মকর্তার নাম/তথ্য কিছুই নেই।
উপজেলা পরিষদ ক্যাটাগরিতে চেয়ারম্যান, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেকদের তথ্য এবং কর্মকর্তাবৃন্দের তথ্যের মিল থাকলেও উপজেলা পরিষদের কার্যাবলি ও সাংগঠনিক কাঠামোর কোন তথ্য নেই এতে।
খুবই গুরুত্বপূর্ণ উপজেলা ভূমি অফিসের সেবা সম্পর্কিত তথ্য থাকলেও সহকারী কমিশনার পদে কত কর্মকর্তার যোগদান হলো, বদলি হলো। কিন্তু দূঃখজনক হলেও এতে নেই কোন কর্মকর্তারই তথ্য। বর্তমান কিংবা সাবেক কোন সহকারী কমিশনারের নাম/ মোবাইল নম্বর কিছুই নেই। এসব দেখারও যেন কেউই নেই।
পত্র-পত্রিকায় তালিকায় রয়েছে ৭টি পত্রিকার নাম। এগুলোর মধ্যে ৬টি পত্রিকাই নবীগঞ্জ থেকে প্রকাশিত হয়না। ১টি দীর্ঘদীন ধরে বন্ধ থাকলেও যেটি নিয়মিত প্রকাশ হচ্ছে সেটিরও নাম নেই।
ডাক্তারের তালিকায় দেখা যায় উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তার লেখা আছে ডাঃ মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম‘র নাম। কিন্তু তিনি বদলি হয়েছেন আরো ৪ বছর আগেই।
সরকারী অফিসসমূহের অপশনে গিয়ে থানার প্রোফাইলে কেবল ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ ডালিম আহমদের নাম থাকলেও, কর্মচারীবৃন্দের তালিকায় কেবল রাজু আহমদ নামে এক কনস্টেবলের তথ্য দেখা যায়। এছাড়া থানার আর কোন অফিসার/কর্মচারীর তথ্য পাওয়া যায়নি। এছাড়াও থানার তথ্য প্রদানকারী কোন কর্মকর্তার তথ্যও পাওয়া যায়নি এতে।
উপজেলা ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অফিসের সেবাসমূহ এবং মাত্র দু-তিনজন কর্মকর্তা/কর্মচারীর তথ্য পাওয়া যায়। উপজেলা আনসার ও ভিডিপি অফিস প্রোফাইলেরও একই দশা। উপজেলা রির্সোস সেন্টার অপশনে ইন্সট্রাক্টর পদে মোহাম্মদ জাকির হোসেন নামে এক কর্মকর্তার প্রোফাইল থাকলেও এতে কি কি সেবা পাওয়া যায়, বা কীভাবে কি সেবা পাওয়া যায়, কীভাবে এতে যোগাযোগ করতে হবে কিছুই দেয়া নেই। উপজেলা মৎস্য অফিসের ক্যাটাগরিতে কেবল কর্মকর্তাবৃন্দের প্রোফাইল থাকলেও নেই প্রয়োজনীয় সকল তথ্য। উপজেলা খাদ্য অফিসের ক্যাটাগরি থাকলেও প্রয়োজনীয় বেশীরভাগ তথ্যই নেই এতে। নামমাত্র ’উপজেলা আইসিটি ট্রেনিং এন্ড রিসোর্স ফর এডুকেশন’ অপশনটি থাকলেও কোন তথ্যই নেই এতে। এছাড়া উপজেলা শিক্ষা অফিস, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার অফিস, উপজেলা একাডেমিক সুপারভাইজার, নবীগঞ্জ হাসপাতাল, প্রাণীসম্পদ র্কাযালয়সহ অনেক অফিসেরই পরিপূর্ণ তথ্য নেই এই পোর্টালে।
এছাড়া জনপ্রতিনিধিদের অপশনে মাত্র বর্তমান/সাবেক ৩৩ জন জন প্রতিনিধির তথ্য পাওয়া যায়। অথচ উপজেলায় রয়েছেন দেড় শতাধিক জনপ্রতিনিধি।
এছাড়া উপজেলার ইউনিয়ন পরিষদসমূহ অপশনটি ভিজিট করে ২নং বড় ভাকৈর (পূর্ব) ইউনিয়ন পরিষদের মাত্র ৪ জন জনপ্রতিনিধির তথ্য, ১০নং দেবপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানসহ মাত্র ৪ জন জনপ্রতিনিধির তথ্য এবং ৪নং দীঘলবাক ইউনিয়ন পরিষদ এবং ১১নং গজনাইপুর ইউনিয়ন পরিষদের কোন জনপ্রতিনিধির তথ্যই পাওয়া যায়নি।
এ নিয়ে নবীগঞ্জ ডিগ্রি কলেজের ছাত্রী নূরী আক্তার (ছদ্মনাম) ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘আমারা অনেক তথ্য জানিনা। তথ্য জানতে প্রয়োজনের সময় তথ্য বাতায়ন থেকে যে তথ্যটি পাচ্ছি তা যদি ভুল হয়, তাহলে নামকাওয়াস্তে তথ্য বাতায়ন থেকেই বা লাভ কি? অনেক তথ্য মিলেনা এই তথ্য বাতায়নে আর যা ই আছে এর মধ্যে অনেক তথ্যই ভূল রয়েছে। এ সময় নিয়মতি আপডেটের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করছি।’
তথ্য বাতায়নের ভূল তথ্য নিয়ে বিড়ম্বনায় রয়েছেন প্রবাসীরাও। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বসবাস করছেন নবীগঞ্জ উপজেলার অনেক রেমিট্যান্স যোদ্ধা। তারা সহজে নবীগঞ্জের সকল তথ্য জানতে প্রবেস করেন তথ্য বাতায়নে। কিন্তু গিয়ে দেখেন তথ্য বাতায়নেই নেই তথ্য।
এ প্রসঙ্গে গ্রিস প্রবাসী সাংবাদিক মতিউর রহমান মুন্না বলেন, ‘আমি দীর্ঘদিন নবীগঞ্জ থেকে সাংবাদিকতা করেছি। প্রবাসে থাকলেও আমার মনটা পড়ে রয়েছে নবীগঞ্জে। নবীগঞ্জের বিভিন্ন তথ্য জানতে যখন তথ্য বাতায়নে প্রবেশ করি তখন রিতিমত হতাশ হই। সব দপ্তরে দায়িত্বরত কর্মকর্তা-কর্মচারী আছেন, সব দপ্তরে ডিজিটাল সেবা নিশ্চিতে রয়েছে ইন্টারনেট সংযোগ। সবই চলছে সরকারি খরচে। নেই কেবল তথ্য বাতায়নে হালনাগাদ তথ্য। এখানে তথ্য আপডেট করতে তো কর্মকর্তাদের ব্যক্তিগত কোন খরচ হচ্ছে না, সবই সরকার দিচ্ছে তবুও কেন তারা উদাসহীন? সকল পুরনো তথ্যই রয়েছে তথ্য বাতায়নে, ভুলে ভরা সরকারি ডিজিটাল সেবার এ তথ্য বাতায়ন। আর এসব ভুল তথ্যে বিভ্রান্তিতে পড়ছি আমরা। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অ্যাকসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রামের আওতায় পরিচালিত হয় জাতীয় তথ্য বাতায়ন। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের যৌথ উদ্যোগে সারা দেশের জেলা, উপজেলা থেকে ইউনিয়ন পর্যায়ের সরকারি দপ্তরের গুরুত্বপূর্ণ তথ্যের সমন্বয়ে জাতীয় তথ্য বাতায়নের আওতায় আলাদা আলাদা ওয়েব পোর্টাল তৈরি করা হয়েছে। জনগণের তথ্য প্রাপ্তির অধিকার নিশ্চিতকরণ ও সরকারি দপ্তর থেকে প্রদেয় সেবাসমূহ প্রাপ্তির নিশ্চয়তার লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠিত হয় জাতীয় তথ্য বাতায়ন। কিন্তু সরকারের কর্মকর্তাদের উদাসীহীনতায় সাধারণ নাগরিকেরা ঘরে বসেই নিজ নিজ এলাকার প্রয়োজনীয় তথ্য ও সেবা অনলাইনে পাচ্ছে না, এমনকি এ প্রকল্প নিয়ে প্রশ্ন তুলার সুযোগ পাচ্ছেন।’ এ বিষয়ে নজর দিতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করে প্রবাসী সাংবাদিক মতিউর রহমান মুন্না।
প্রসঙ্গত প্রশ্ন উঠেছে তথ্য বাতায়নের তদরকির দায়ীত্ব কার? কেউই কি সংশ্লিষ্টদের হালনাগাদের জন তাগিদ দেননা? এমন প্রশ্নের উত্তর জানতে খোঁজ নিয়ে জানা যায়- এই দায়িত্বে রয়েছেন উপজেলা সহকারী প্রোগ্রামার কাজী মঈনুল ইসলাম। দায়িত্বে থাকলেও নিয়মিত অফিস না করা ও দায়সারাভাবে দায়িত্ব পালনের অভিযোগ উঠেছে তার বিরুদ্ধে। জাতীয় তথ্য বাতায়নে তথ্য আপডেট নেই কেন? এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে কাজী মঈনুল ইসলাম বলেন- ‘স্ব স্ব দপ্তর থেকে আমাকে যে তথ্যগুলো দেয়া হয় সেগুলো আমি আপডেট করি। তাছাড়া প্রত্যেকটা দপ্তরেরই আলাদা লোক রয়েছে তারা আপডেট করে থাকে, তারা যদি আপডেট করতে বা সাইটে কোন সমস্যার সম্মুখীন হয় তাহলে আমি তাদেরকে সহযোগীতা করি। প্রত্যেকটা ইউনিয়ন পরিষদেই আপডেটের জন্য নির্বাচনের পরপর আমি তাগিদ দিয়েছি।’ নবীগঞ্জ উপজেলা থেকে প্রকাশিত পত্র পত্রিকার তথ্য নেই কেন? এমন প্রশ্নের জবাবে কাজী মঈনুল ইসলাম বলেন- ‘এগুলো তথ্য আমাকে ইউএনও মহোদয় দেন নি, তাই আপডেট করতে পারি নি।’
এ বিষয়ে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন- ‘এটা প্রত্যেকটা দপ্তরের দায়িত্ব, আমরা সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলোকে চিঠি দেব, শীঘ্রই এটা আপডেট করা হবে। প্রোগ্রামারের অফিস না করা নিয়ে বলেন- ‘একাধিক উপজেলার দায়িত্বে থাকায় অফিস করা সম্ভব হয় না।’

হবিগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচন আজ

নবীগঞ্জ :: আজ হবিগঞ্জ জেলা পরিষদের নির্বাচন। নবীগঞ্জ উপজেলার ভোটার কেন্দ্র হচ্ছে নবীগঞ্জ হিরা মিয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়। সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত একটানা ভোট গ্রহণ চলবে।

জেলা পরিষদের ৩নং ওয়ার্ডে সাধারণ আসন নবীগঞ্জ উপজেলায় ৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। আজ ১৭ অক্টোবর অনুষ্ঠিত নির্বাচনে সাবেক সদস্য আব্দুল মতিন আছাব (হাতি), শেখ শফিকুজ্জামান শিপন (টিউবওয়েল) এবং সাংবাদিক আব্দুল মুহিত (সিএনজি) প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন।

সংরক্ষিত আসন নং-১ (নবীগঞ্জ, বানিয়াচং ও আজমিরীগঞ্জ) এলাকায় দু’জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। তারা হলেন সাবেক প্যানেল চেয়ারম্যান শিরীন আক্তার (দোয়াত কলম) এবং বানিয়াচং উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক রাহেলা হক (ফুটবল)।
প্রচারনার শেষ মুহূর্তে প্রার্থীরা স্ব স্ব নির্বাচনী এলাকায় ভোটারদের দ্বারে দ্বারে চষে বেড়িয়েছেন।
১৩টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভা নিয়ে গঠিত নবীগঞ্জ উপজেলার নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিগণ ভোটার হিসেবে তাদের ভোটারধিকার প্রয়োগ করবেন। নির্বাচনে সাধারণ আসনের ৩ জন প্রার্থীর মধ্যে দুইজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতায় রয়েছেন। নবীগঞ্জ উপজেলায় ১৮৫ জন ভোটার রয়েছেন।
নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগ মনোনিত প্রার্থী ডাঃ মুশফিক হোসেন চৌধুরীকে এ উপজেলার ভোটারগণ শতভাগ ভোট তার ঘোড়া প্রতীকে ভোট প্রদান করবেন বলে নিশ্চিত আবাস পাওয়া গেছে।সংরক্ষিত মহিলা আসনে রাহেলা হক ফুটবল প্রতীক নিয়ে আলোচনায় রয়েছেন। তবে কার ভাগ্যে কি লেখা আছে তা বলা মুশকিল।

গেল নির্বাচনে এ উপজেলায় ৩ জন সদস্য থাকলেও এবারের নির্বাচনে সারা উপজেলায় ১ জন সদস্য নির্বাচিত হওয়ার বিধান রাখা হয়েছে। এই নির্বাচনে কে হবেন আগামী দিনের নবীগঞ্জ উপজেলার সদস্য তা নিয়ে ভোটারসহ সাধারণ মানুষের মাঝে কৌতুহল রয়েছে।

নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইমরান শাহরীয়ার বলেন নির্বাচনের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। অবাধ সুষ্টু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন উপহার দিতে প্রশাসন প্রস্তুত রয়েছে।





google.com, pub-4074757625375942, DIRECT, f08c47fec0942fa0

আর্কাইভ

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)