শিরোনাম:
●   বাংলাদেশের ডা. নাসের খান অ্যামেরিকায় ‘ফ্রম দি হার্ট -২০১৯’ পুরস্কারে ভূষিত ●   চাকুরী দেবার কথা বলে ২ কোটি টাকার প্রতারণায় সানোয়ার আটক ●   ঈশ্বরগঞ্জে হত্যা মামলায় ১৬ বছর পর দুইজনের ফাঁসির রায় ●   আত্রাইয়ে আলোক ফাঁদ পদ্ধতি কমছে কীটনাশক ব্যবহার ●   বাগেরহাটে সরকারী ১২ পুকুর খননে চলছে পুকুর চুরি ●   রাস্তা পাকাকরণে ব্যবহার হচ্ছে নিম্নমানের ইট ●   রাজশাহীতে সম্প্রীতির হাওয়া ●   রোয়াংছড়ি নোয়াপতং খায়াংম্রং পাড়ায় অ‌গ্নিকা‌ন্ড ●   বিধবা-বয়স্ক ও প্রতিবন্ধী ভাতা চেয়ারম্যান-মেম্বারের পেটে ●   ৭ বছরের শিশুকে বলাৎকারের অভিযোগে রাজুকে চুল কেটে জুতার মালা গলায় দিয়ে ঘুরিয়েছে গ্রামবাসী ●   রাঙামাটিতে জাতীয় স্বাস্থ্যসেবা সপ্তাহ উপলক্ষে র‌্যালি ●   গাইবান্ধায় ৩৯৭ বোতল ফেন্সিডিলসহ আটক-৩ ●   একধিক ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে প্রধান শিক্ষক সালাম গ্রেফতার ●   ময়মনসিংহে সিটি নির্বাচনে মেয়র পদে নৌকার প্রার্থী টিটুকে ‘বিনা ভোটে’ জয়ী ঘোষণা ●   দেশব্যাপী ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালন ●   রুমায় বর্নাঢ্য আয়োজনে মৈত্রী পানি বর্ষণ সমাপ্ত ●   বিশ্বনাথে ইউএনও’র আচরণে ক্ষুব্ধ সাংবাদিকরা ●   ছিনতাই হওয়া মাইক্রোবাস জয়পুরহাটে উদ্ধার ●   বান্দরবানে প্রান্তিক লেকের পানিতে ডুবে বন্য হাতির মৃত্যু ●   মহালছড়িতে সাংগ্রাই উপলক্ষে মৈত্রী পানি খেলা ●   ঐতিহ্যবাহী গোপাল চাঁদ বারুণী মেলায় লাখো ভক্তের পদচারনায় মুখরিত ●   ‘স্বাস্থ্য সেবা অধিকার, শেখ হাসিনার অঙ্গীকার’ শ্লোগানে ঝিনাইদহে স্বাস্থ্যসেবা সপ্তাহের উদ্বোধন ●   চাটমোহরে স্কুলের দেয়ালে মৌচাক ●   বান্দরবানে দুদকের গণশুনানি ●   রাউজানে ‘সম্ভবা’ নামক স্মারণিকার মোড়ক উন্মোচন ●   মহালছড়িতে বিজু কাপ ফুটবল টুর্ণামেন্টের সমাপণী ●   ময়মনসিংহ সিটির প্রথম নির্বাচনে ভোট ছাড়াই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আ’লীগের ইকরামুল হক টিটু মেয়র নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন ●   কুশিয়ারা নদীর ভাঙন রোধের জিও ব্যাগ ফেলার কার্যক্রমের উদ্বোধন ●   রাজশাহী সিটির হোল্ডিং ট্যাক্স আদায় পক্ষ কর্মসূচির উদ্বোধন ●   সাংবাদিকদের বের করে দিয়ে এমপির মতবিনিময় সভা
রাঙামাটি, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০১৯, ৬ বৈশাখ ১৪২৬


CHT Media24.com অবসান হোক বৈষম্যের
বৃহস্পতিবার ● ৬ ডিসেম্বর ২০১৮
প্রথম পাতা » চট্টগ্রাম বিভাগ » বান্দরবানে নদী ও সড়ক পথের পাশে এবারও ব্যাপক তামাক চাষ শুরু
প্রথম পাতা » চট্টগ্রাম বিভাগ » বান্দরবানে নদী ও সড়ক পথের পাশে এবারও ব্যাপক তামাক চাষ শুরু
১৪১ বার পঠিত
বৃহস্পতিবার ● ৬ ডিসেম্বর ২০১৮
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

বান্দরবানে নদী ও সড়ক পথের পাশে এবারও ব্যাপক তামাক চাষ শুরু

---মোহাম্মদ আব্দুর রহিম, বান্দরবান থেকে :: সেই দুর্গম বড় মদক থেকে বান্দরবান জেলা শহর এবং আলীকমের পোয়ামহুরী থেকে লামা উপজেলা সদর পর্যন্ত সাংগু নদীর দুইতীরে তিন শতাধিক কিলোমিটার এলাকায় ব্যাপক আকারে এবারও তামাক চাষ শুরু হয়েছে। সড়কপথের দুইপাশে লামা উপজেলার ইয়াংসা থেকে ফাঁািসয়াখালী,আলীকদম উপজেলা সদর থেকে লামা উপজেলা সদরজুড়েই শুধু তামাক চাষ আর তামাক চাষের সূচনা নজরে পড়ছে আবারও। ফলে জেলার রুমা, থানছি,রোয়াংছড়ি,বান্দরবান সদর, আলীকদম, নাইক্ষ্যংছড়ি ও লামা উপজেলায় শীতকালীন সাক-সবজীর আবাদ প্রতিবছরের মত এবারও ভয়ানকহারে কমে যাবে। বর্তমানে জেলা সদরসহ উপজেলা সদরগুলোতে সাধারণ তরকারীর দাম প্রতিকেজি গড়ে ৩০ থেকে ৬০ টাকা।
বান্দরবান পার্বত্য জেলায় সর্বনাশী তামাক চাষের ব্যাপক প্রস্তুুতি চলছে। আসন্ন মৌসুম উপলক্ষে চাষীরা তামাক কোম্পানীগুলোর অগ্রীম অর্থসহায়তায় অবাধে তামাক চাষের জন্য মাঠে নেমেছে। জেলার নানাস্থানে বিপুল সংখ্যক তামাক পাতার বিজতলা স্থাপিত এবং চারা উত্তোলন করা হয়েছে। বহু এলাকায় ইতিমধ্যেই জমিতে চাষীরা তামাক চারা লাগিয়েছে। গত ১০ বছরে জেলায় তামাক চাষের ক্ষেত্র প্রায় ২০ গুন বৃদ্ধি পেয়েছে, একইকারণে কমেছে কৃষিপণ্যের আবাদ। তবু প্রশাসন কিংবা সংশ্লিষ্টদের কোন মাথা ব্যথা নেই তামক চাষ প্রতিরোধে। ভোক্তা ও কৃষষদের অভিযোগ, তামাকচাষ বিরোধী জোরালো কোন ভ’মিকাও পালন করছেন না সরকারি কর্মকর্তারা।
জেলার থানছি উপজেলা সদর থেকে দুর্গম বড়মদক পর্যন্ত প্রায় ৪৮ কিলোমিটার নদী পথ। এর মধ্যে প্রায় ২৫ কিলোমিটারজুড়েই নদীর চরে তামাক চাষের জন্য জমি তৈরি করা হয়েছে। ব্যাপক এলাকায় তামাক বিজতলা স্থাপিত হয়েছে। একইভাবে থানছি থেকে জেলা সদরের কাছে চাইংগা,তারাছা, বাগমারা, আন্তা পাড়া, জামছড়ি বেতছড়া এবং জেলা শহরের ভাটিতে ভরাচর, লাংগিরচর থেকে চেমিমুখ পর্যন্ত ৩০ কিলোমিটার নদীর তীরে তামাক চাষের ব্যাপক প্রস্তুতি চলছে। এসব নদীর চরের মোট জমির প্রায় ৮০ ভাগই তামাকচাষের জন্য এবং বাকি ২০ ভাগ জমিতে কৃষিপণ্য আবাদের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে বলে জানা গেছে। একইভাবে রোয়াংছড়ি উপজেলা সদরের সমতল এলাকাসমুহেও তামাকচাষ করার জন্য জমি তৈরি করা হয়েছে। বেতছড়া ও তারাছামুখ এলাকায় ইতিমধ্যেই তামাক পাতার চারা রোপন করা হয়েছে, অন্যান্য এলাকায় তামাক চাষ শুরু হয়ে গেছে।
এদিকে জেলার থানছি উপজেলার বলিপাড়ায় প্রায় ৯০ ভাগ জমিতে এবারও তামাক চাষ শুরু হয়েছে বলে জানা গেছে। বলি বাজার এলাকার একশ্রেণীর মহাজন তামাকচাষীদের চড়াসুদে দাদন দিয়েছে। কয়েকজন তামাকচাষী (নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক) বৃহস্পতিবার জানিয়েছেন, প্রতিহাজারে ৫০০ টাকাহারে সুদ নিয়েই বহু চাষী এবারও তামাকচাষ শুরু করে দিয়েছে। তামাক কোম্পানী গুলো তাদের সুবিধার জন্যে এবং পছন্দের চাষীদের মধ্যেই কেবল অগ্রীম লোন প্রদান করে থাকে। ফলে অন্যচাষীরা মহাজনের চড়াসুদেই তামাক চাষ করতে বাধ্য হচ্ছেন ফি বছরই।
বেশকটি এলাকা পরিদর্শন এবং কৃষকদের সাথে কথা বলে জানাগেছে, অবাধে তামাক চাষের ফলে এলাকা ভিত্তিক কৃষি জমি কমছে, বাড়ছে তামকা পাতা চাষের জমি। ফলে পুরো এলাকায় তরকারীর ও সাকসবজির আবাদ কমেছে। এতে হাটবাজারগুলোতে তরকারী ও সবজির সরবরাহ কমে যাওয়ায় এলাকাবাসীকে তিনগুন দামে সাকসবজি কিনে খেতে হচ্ছে। পুষ্টিবান সবজিরও কৃত্রিম সংকট বিরাজ করছে। জেলা সদরে ৩০ থেকে ৬০ টাকা দামে প্রতিকেজি তরকারি কিনতে হচ্ছে ক্রেতাদের বর্তমানে। একইভাবে উপজেলা গুলোতেও সবজির চরম সংকট বিরাজ করছে। তবু নেই তামাক পাতার চাষ রোথে কোন পদক্ষেপ। তামাকচাষ ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে, প্রতিরোধ করা হচ্ছে না।
বান্দরবান জেলা সদরের কৃষিবিদ আলতাফ হোসেন জানান, বান্দরবান জেলার পাহাড় ও সমতলের মাটি খুবই উর্বর এবং কৃষিপণ্য উৎপাদ উপযোগী। সর্বনাশী তামাকের বিকল্প চাষ হিসেবে আবাদ করতে আমাদের রাজস্ব খাাতথেকে এবছরে ২১০০,জন কৃষককে ১ ভিগা করে ভুট্টা বিজ, আমন ধান বিজ, বুরো ধান বিজ ও আউষ ধানের বিজ, ভিটি বেগুন বিজ প্রদান করাহয় ও সাতে বিনা মূল্যে বিভিন্ন সারও প্রদান করা হচ্ছে। শুধুমাত্র তামাক চাষ থেকে বেরিয়ে আসার জন্য আগামীতে আরো ৬০০ জন কৃষককে ঠিক এভাবে সরকারি রাজস্ব খাত হতে সহায়তা দেওয়া হবে। এভাবে, তুলা, আখ, আদা-হলুদ, মসলাজাতীয়সহ বিভিন্ন কৃষিপন্য আবাদ করা অতিব প্রয়োজন। এতে পরিবেশ অনুকুলে থাকবে, মানুষের পুষ্টির যোগানও বজায় রাখা সম্ভব হবে।
বান্দরবান জেলা মৃত্তিকা বিভাগের একজন কর্মকর্তা বলেন, অবাধে তামাকচাষের ফলে পাহাড়ের মাটি ক্রমশ উর্বরা শক্তি হারাচ্ছে। কৃষকদের এখনই সময় সেই সর্বনাশী তামাক চাষ থেকে ফিরে আসা। তামাক চাষের ফলে জমিতে কেঁচোসহ পরিবেশ রক্ষাকারী পোকা-মাকড়ও ধংস হয়ে যাচ্ছে। সরকারের কৃষি বিভাগসহ উন্নয়ন সংস্থা বা প্রতিষ্ঠানগুলোকে তামাকের বিকল্প চাষে কৃষকদের প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রদানের দ্রুত উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে।
জেলায় তামাকচাষে নিয়োজিত তামাক কোম্পানীগুলোর স্থানীয় কর্মকর্তারা বলেন, এলাকার চাষীরা নগদ অর্থ পাওয়ায় তামাকচাষের দিকে ঝুঁকে পড়েছে। কোন চাষীকে অর্থের প্রলোভন দেখিয়ে তামাকচাষ সম্প্রসারণ করা হচ্ছে না বলেও তারা দাবি করেন। তারা বলেন, দেশে তামাকচাষ বন্ধ হলে বিদেশ থেকে বছরে কমপক্ষে ৩০ হাজার কোটি টাকার কামাক আমদানী করতে হবে। তাছাড়াও তামাক উৎপাদনও বিক্রিতকারণে সরকার বতর্মানে প্রতিবছর কমপক্ষে ৮ হাজার কোটি টাকার নিশ্চিত রাজস্ব পাচ্ছে বলে তারা জানান।



আর্কাইভ

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)