শিরোনাম:
●   ঝালকাঠিতে ৮৫ হাজার শিশুকে ভিটামিন ‘এ’ খাওয়ানো হবে ●   ঘর নির্মাণে প্রতিবেশির বাধার অভিযোগ ●   প্রকাশককে হুমকি দেওয়া দুলালের নামে থানায় জিডি ●   ঘোড়াঘাটে এক রোহিঙ্গা আটক ●   ঝিনাইদহ জেলা বিএনপি’র সম্মলন : বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় সভাপতি মজিদ, সম্পাদক পদে ৩ জনের লড়াই ●   বাগবাড়ী মহিলা কলেজ ঝড়ে লন্ড-ভন্ড ●   একটি ট্রাকসহ আন্তঃজেলার চার ডাকাত গ্রেফতার ●   শ্বশুরের প্রতারণার স্বীকার হলেন জামাই ●   বাজার নিয়ন্ত্রণ আর দেশ চালাতে না পারলে ক্ষমতা ছেড়ে দিন : সাইফুল হক ●   জাতীয় কবি নজরুল অগ্রসর চিন্তা-চেতনার প্রতীক হয়ে থাকবেন : চুয়েট ভিসি ●   উৎসুক জনতা র‍্যাবকে ডাকাত সন্দেহে আক্রমন : আহতদের চিকিৎসার জন্য হেলিকপ্টারে করে ঢাকায় ●   রামগড়ে সয়াবিন তেলের ওজনে কারচুপি ●   মিরসরাইয়ে যাত্রীবাহী বাস থেকে ইয়াবাসহ গ্রেফতার-১ ●   বানিজ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে “ভোক্তা অধিকার বিভাগ” চায় ক্যাব ●   ঝালকাঠিতে ইউপি চেয়ারম্যানের বিক্রিত ব্রিজের মালামাল জনতার হাতে আটক ●   বিশ্বনাথের খাজাঞ্চী ইউনিয়নে ত্রাণ বিতরণ ●   ঝিনাইদহ হাসপাতালে নার্সিং কলেজের শিক্ষার্থীরা চিকিৎসকের সাক্ষর জাল করে ওষুধ উত্তোলন ●   ঘোড়াঘাটে সিটি ব্যাংকের আলোচনা সভা ●   শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সকলকে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করতে হবে : আমু ●   রেডব্রিজ লিবারেল ডেমোক্র্যাটস শাখার ধন্যবাদ ●   সিলেটে ত্রাণ নিয়ে আসার পথে দুর্ঘটনার শিকার গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের গাড়ি ●   পানছড়িতে নবনির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যানের দায়িত্ব গ্রহন ●   কাপ্তাই সেনা জোনে হেডম্যান কারবারী সম্মেলন ●   নবীগজ্ঞে জামাত নেতা ছলিম গ্রেফতার ●   মহালছড়িতে সরকারি টাকা নিয়ে উধাও ●   মিরসরাইয়ে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন ●   রক্তের হোলিখেলায় মেতে উঠেছে পাঞ্জের ও সবুজ হত্যা মামলার প্রধান আসামি দুলাল ●   আত্রাইয়ে ৭ জুয়াড়িসহ গ্রেপ্তার-৪ ●   সিরাজগঞ্জে হত্যা মামলায় তিনজনের যাবজ্জীবন কারাদন্ড ●   বড়হাতিয়ায় স্বেচ্ছাসেবক লীগের গুরু দায়িত্ব নিতে চান ইমন
রাঙামাটি, শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯



CHT Media24.com অবসান হোক বৈষম্যের
শুক্রবার ● ১৫ এপ্রিল ২০২২
প্রথম পাতা » প্রকৃতি ও পরিবেশ » কুশিয়ারা নদীর চর কেটে অবৈধভাবে বালু বিক্রি : রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার
প্রথম পাতা » প্রকৃতি ও পরিবেশ » কুশিয়ারা নদীর চর কেটে অবৈধভাবে বালু বিক্রি : রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার
৯৫ বার পঠিত
শুক্রবার ● ১৫ এপ্রিল ২০২২
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

কুশিয়ারা নদীর চর কেটে অবৈধভাবে বালু বিক্রি : রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার

--- নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি :: হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার দীঘলবাক ইউনিয়নে কুশিয়ারা নদীর চর কেটে বালু বিক্রি করছে স্থানীয় কয়েকটি প্রভাবশালী মহল। কোনো ধরণের ইজারা ছাড়াই উপজেলার দীঘলবাক ইউনিয়নের চরগাঁও ও কসবা গ্রামে বছরের পর বছর ধরে এ ঘটনা ঘটছে। এর ফলে সরকার হারাচ্ছে কোটি কোটি টাকার রাজস্ব।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয়রা জানান, ইনাতগঞ্জ ভূমি অফিস ও স্থানীয় পুলিশ ফাঁড়িকে ম্যানেজ করেই সরকারের সম্পদ চুরি করে বিক্রি করা হচ্ছে বিভিন্ন ব্যক্তি ও কোম্পানির কাছে। যদিও এ বিষয়ে তারা অভিযোগ অশ্বীকার করেছেন।

প্রতিদিন রাত ৮টা থেকে গভীর রাত পর্যন্ত ট্রাক ও ট্রাক্টর বোঝাই করে মাটি ও বালু পৌছে দেয়া হয় গন্তব্যে। এসব ট্রাক ও ট্রাক্টর ইনাতগঞ্জ বাজার অতিক্রম করে গেলেও ইনাতগঞ্জ ফাঁড়ির প্রশাসন রহশ্যকারনে নীরব। তাদের চোখের সামন দিয়ে গেলও করার যেন কিছুই নেই।

ইনাতগঞ্জ বাজারের ছোট গলি দিয়ে অন্য যানবাহনের সাথে এসব ট্রাক,ট্রাক্টর চলার কারনে অহরহ ঘটছে দুর্ঘটনা। ফলে প্রাণ চলে যাচ্ছে পথচারীদের। সম্প্রতি বাজারে জানজটের সৃষ্টি হলে ব্যাটারি চালিত রিক্সার ধাক্কায় এক সন্তানের জননী অল্প বয়সেই মৃত্যুবরণ করেন।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার দীঘলবাক ইউনিয়নের বুক চিড়ে প্রবাহিত কুশিয়ারা নদীতে বর্তমান সময়ে পানি না থাকায় কসবা গ্রামে বিশাল চর জেগেছে। বছরের পর বছর ধরে দীঘলবাক ইউনিয়নের চরগাঁও গ্রামের আব্দুর রহিমের পুত্র ছুবেদ মিয়ার নেতৃত্বে মাটি ও কসবা গ্রামের রাসেলসহ স্থানীয় ৪-৫টি সঙ্ঘবদ্ধ প্রভাবশালী চক্র বিশাল স্থান নিয়ে কসবা গ্রামের কুশিয়ারা নদীর ঘাট এলাকায় মাটি ও বালু উত্তোলন করছে। প্রতিদিন ওই সঙ্ঘবদ্ধ চক্রের ৭০-৮০ জন শ্রমিক তারা নদীর চর কেটে ট্রাকে বালু ও মাটি তোলে দেন।বালুগুলো বিভিন্ন কোম্পানি,ইটভাটা ও ব্যক্তির কাছে বিক্রি করা হয়। নদীর চর থেকে প্রতি ট্রাক বালুর দাম ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা নেওয়া হচ্ছে। প্রতিদিন ৫০-৬০ ট্রাক বালু বিক্রি করা হচ্ছে।

কুশিয়ারা নদীর চরের বালু ও মাটি বিক্রি করে ছুবেদগংরাসহ সঙ্ঘবদ্ধ কুচক্রী মহল লাভবান হলেও কিছু অসাধু কর্মকর্তা কর্মচারীদের ছত্রছায়ায় সরকার কোটি কোটি টাকার রাজস্ব হারাচ্ছে। অন্যদিকে বন্যা কবলিত এলাকায় নদীর চর কাটার ফলে আগামী দিনে বন্যার কবলে দীঘলবাক এলাকার আরো ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হবে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় এক ব্যক্তি জানান,সুচতুর মাটি খেকো ছুবেদগংরা আঙ্গুল ফুলে কলা গাছ হয়েছেন। উপজেলা প্রশাসনের অভিযানে এদের চরে পাওয়া যায়না। প্রশাসন আসার আগেই তারা খবর পেয়ে যায়।

তিনি বলেন বেপরোয়া ছুবেদকে আটকাতে পারলেই বন্ধ হয়ে যাবে চিরতরে কুশিয়ারা থেকে মাটি বালু উত্তোলন। এদের বিরুদ্ধে তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করার করার জন্য তিনি প্রশাসনের প্রতি দাবি জানান।

সরেজমিনে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করার সময়, কোদাল দিয়ে নদীর চর থেকে বালু কাটার সময় কথা হয় নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ৬৫ বৎসরের এক বৃদ্ধ শ্রমিকের সাথে। তিনি বলেন তোমরা কেনে আইছো কত বড় বড় রাগব বোয়াল আইয়া অখান তাকি ফিরিয়া গেছইন। তোমরা পত্রিকাত লেখিয়া কী হইবো ! পত্রিকায় লেক্কিয়া কিচ্ছু অইতো নায়,কামকা আইছো রে বাবা যাওগি যাও। বড় সাব এখানে আওয়ার আগেই আমরা খবর পাইলাই।

এক পর্যায়ে প্রতিবেদক কিভাবে খবর পান জানতে চাইতে অপারগতা প্রকাশ করে বালু কাটা বন্ধ করে তিনিসহ অন্য শ্রমিকরা চলে যান।

এদিকে বন্যা কবলিত এলাকা হিসেবে দীঘলবাক ইউনিয়নে গত বছর প্রায় কয়েক শতাধিক পরিবারের ঘর-বাড়ি পানির নিচে তলিয়ে যায়। ঝুকিঁপূর্ন এলাকা হওয়া সত্ত্বেও কী ভাবে প্রকাশ্যে এ ইউনিয়নে নদীর চর কেটে অবাধে বালু বিক্রি করা হচ্ছে এনিয়ে রয়েছে নানা প্রশ্ন । অন্যদিকে নদীর চর থেকে প্রকাশ্যে ক্ষমতার দাপটে সরকারি সম্পদ চুরি করে বিক্রি করে একেকজন হয়েছেন আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ। একাধিক বার প্রশাসনিক কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করার পরও কোনো স্থায়ী ফলাফল না আসায় প্রশাসনের প্রতি ক্ষোভ জানিয়েছেন সচেতন মহল।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) হবিগঞ্জ জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল সোহেল বলেন,নদী মাতৃক আমাদের এই বাংলাদেশ । কিছু অসাধু লোকজনের কারণে নদীর চর কেটে বালু বিক্রি করার উৎসব চলছে। কুশিয়ারা নদীর একটি অংশ নবীগঞ্জের বন্যা কবলিত এলাকা হিসেবে চিহ্নিত দীঘলবাক ইউনিয়নের ভিতর দিয়ে প্রবাহিত। একের পর এক নদীর চর কেটে বালু বিক্রি করার ফলে এলাকাটি বন্যা কবলিত এলাকা হিসেবে আরো বেশি ঝুকিঁপূর্ণ হয়ে উঠছে। তাই দ্রুত চর কাটা বন্ধে প্রশাসন সোচ্চার হবে বলে আশাবাদী।

নবীগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) উত্তম কুমার দাশ চর কেটে বালু বিক্রির সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন,এখানে একাধিক পক্ষ কুশিয়ারা নদীর তীর থেকে অবৈধভাবে মাটি বালু বিক্রি করে আসছে। এব্যাপারে কিছুদিন পূর্বে আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করি এবং বালুর স্তুপ জব্দ করাসহ মোবাইল কোর্টে কয়েকজনকে সাজা ও জরিমানা করি। অভিযান অব্যাহত থাকবে। তবে চরে ছুবেদকে কখনো পাওয়া যায়নি বলে তিনি জানান।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহিউদ্দিন বলেন, বালু উত্তোলনের খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করে নদীর চর থেকে বালু কাটা ও বিক্রি বন্ধ করা হয় এবং বালু মাটি জব্দ করা হয়। যারা বালু বিক্রি করছে তাদের সবার বিরুদ্ধে শীঘ্রই নিদিষ্ট বালু ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইন ২০১০ এর আওতায় ব্যবস্থা নেয়া হবে। সরকারকে রাজস্ব না দিয়ে যারা এ ধরণের কার্যক্রম করে তাদের বিরুদ্ধে আমাদের অবস্থান অত্যান্ত শক্ত আমরা এবিষয় কঠোরভাবে দমন করবো।





google.com, pub-4074757625375942, DIRECT, f08c47fec0942fa0

আর্কাইভ

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)