শিরোনাম:
●   ঈশ্বরগঞ্জে মাদ্রাসা শিক্ষকের বিরুদ্ধে সমকামিতার অভিযোগ ●   জরুরী ভিত্তিতে বন্যাদুর্গত অঞ্চলে খাদ্য ও ত্রাণসামগ্রী পৌঁছান : সাইফুল হক ●   ঘোড়াঘাটে কৃষক লীগ নেতার তালকান্ড ●   রাউজানে পুকুরে ডুবে কন্যা শিশুর মৃত্যু ●   সাজেকে নাঈম হত্যা মামলায় ইউপিডিএফ নেতাদের জড়িত করায় নিন্দা ●   ঘোড়াঘাটে নবীন বরণ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত ●   বাঘাইছড়ি ইউএনওকে প্রত্যাহারের দাবিতে পানছড়িতে বিক্ষোভ ●   দুর্বার প্রগতি সংগঠনের কার্যকরী পরিষদ গঠন ●   নবীগঞ্জে ভয়াবহ বন্যার আশংকা : হুমকিতে বিবিয়ানা গ্যাস ফিল্ড ●   কিম জং উন - ভ্লাদিমির পুতিন মধ্যে ঐতিহাসিক প্রতিরক্ষা চুক্তি স্বাক্ষর ●   ঘোড়াঘাটে পানিতে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু ●   গুইমারায় শান্তি পরিবহনের বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে আহত-২০ ●   ঈশ্বরগঞ্জে অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে ঢেউটিন বিতরণ ●   চট্টগ্রাম-রাঙামাটি সড়কে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বাস খাদে আহত - ২০ ●   রাঙামাটির বাঘাইহাটে সন্ত্রাসীদের গুলিতে এক ব্যক্তি নিহত হওয়ার ঘটনায় নিন্দা ●   কাউখালীতে বৃহৎ ঈদুল আজহার জামাত অনুষ্ঠিত ●   ঘোড়াঘাটে ঈদ সামগ্রী বিতরণ ●   প্রতি বছরের ন্যায় এবারও সৌদির সঙ্গে মিল রেখে ঝিনাইদহে ঈদুল আজহার নামাজ আদায় ●   রাঙামাটিতে বজ্রপাতে নারীসহ ৫ জনের মৃত্যু ●   মায়ানমারের জান্তা বাহিনীর তৎপরতা দেশের সার্বভৌমত্বের জন্য হুমকিস্বরুপ ●   সিলেট বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের শপথ গ্রহণ ●   রাঙামাটি কোতোয়ালি থানার ওসির বিরুদ্ধে লিগ্যাল এইডের কাজে বাধার অভিযোগ ●   রাঙামাটি জেলায় কোন সংসদ সদস্য আছে বলে মনে হয় না : নির্মল বড়ুয়া মিলন ●   ৭৫ বছরে এসে আওয়ামী লীগের পৃথিবী ছোট হয়ে এসেছে ●   ঘোড়াঘাটে অবৈধভাবে মাদ্রাসার অফিস সহকারী নিয়োগের পাঁয়তারা ●   কুরবানির ঈদ উপলক্ষে নবীগঞ্জে ব্যস্ত সময় পার করছেন কামার শিল্পীরা ●   দেশবাসীকে বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির শুভেচ্ছা ●   নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানগণকে সংবর্ধনা ●   রামগড় জঙ্গল থেকে শ্রমিকের লাশ উদ্ধার ●   কুষ্টিয়ায় নিখোঁজ শিশুর মরদেহ দু’দিন পর মিলল বিলে
রাঙামাটি, শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১



CHT Media24.com অবসান হোক বৈষম্যের
মঙ্গলবার ● ১৬ আগস্ট ২০২২
প্রথম পাতা » কৃষি » প্রযুক্তির ছোঁয়ায় বিলুপ্তির পথে লাঙ্গল দিয়ে হালচাষ
প্রথম পাতা » কৃষি » প্রযুক্তির ছোঁয়ায় বিলুপ্তির পথে লাঙ্গল দিয়ে হালচাষ
৬৩০ বার পঠিত
মঙ্গলবার ● ১৬ আগস্ট ২০২২
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

প্রযুক্তির ছোঁয়ায় বিলুপ্তির পথে লাঙ্গল দিয়ে হালচাষ

ছবি : সংবাদ সংক্রান্ত নাজমুল হক নাহিদ, আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি :: উত্তর জনপদের শষ্য ভান্ডার খ্যাত নওগাঁর আত্রাইয়ে কৃষিতে দিন দিন যুক্ত হচ্ছে উন্নত প্রযুক্তি। ফলে কালের বিবর্তনে হারিয়ে যেতে বসেছে মানব সভ্যতার সোনালী অতীত-ঐতিহ্য গ্রাম-বাংলার সেই চিরচেনা গরু-লাঙ্গল দিয়ে জমি চাষের দৃশ্য। উত্তর জনপদে লাঙ্গল দিয়ে জমি চাষ এখন শুধুই স্মৃতি।

এক সময় দেখা যেত সেই কাক ডাকা ভোরে কৃষকরা গরু ও কাঁধে লাঙল-জোয়াল নিয়ে বেরিয়ে যেত মাঠের জমিতে হালচাষ করার জন্য। বর্তমানে আধুনিকতার স্পর্শে ও বিজ্ঞানের নতুন নতুন আবিষ্কারের ফলে কৃষকদের জীবনে এসেছে নানা পরিবর্তন। আর সেই পরিবর্তনের ছোঁয়াও লেগেছে কৃষিতে। তাই আর সকালে কাঁধে লাঙল-জোয়াল নিয়ে মাঠে যেতে আর দেখা যায় না কৃষকদের।

কৃষি প্রধান বাংলাদেশের হাজার বছরের ইতিহাসের সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে লাঙল, জোয়াল। আধুনিকতার ছোঁয়ায় হাল চাষের পরিবর্তে এখন ট্রাক্টর অথবা পাওয়ার টিলার দিয়ে জমি চাষ করা হয়। এক সময় দেশের বিভিন্ন জেলা-উপজেলায় বাণিজ্যিকভাবে কৃষক গরু, মহিষ পালন করত হাল চাষ করার জন্য। আবার অনেকে গবাদিপশু দিয়ে হাল চাষকে পেশা হিসেবে বেছে নিয়ে ছিলেন। আবার অনেকে, ধান গম, ভুট্টা, তিল, সরিষা, কলাই, আলু প্রভূতি চাষের জন্য ব্যবহার করতেন।

নিজের সামান্য জমির পাশাপাশি অন্যের জমিতে হাল চাষ করে তাদের সংসারের ব্যয়ভার বহন করত। হালের গরু দিয়ে দরিদ্র মানুষ জমি চাষ করে ফিরে পেত তাদের পরিবারের সচ্ছলতা। আগে দেখা যেত কাকডাকা ভোরে কৃষক গরু, মহিষ, লাঙল, জোয়াল নিয়ে মাঠে বেড়িয়ে পড়ত। এখন আর চোখে পড়ে না সে দৃশ্য। জমি চাষের প্রয়োজন হলেই অল্প সময়ের মধ্যেই পাওয়ার টিলারসহ আধুনিক যন্ত্রপাতি দিয়ে চালাচ্ছে জমি চাষাবাদ। তাই কৃষকরা এখন পেশা বদলি করে অন্য পেশায় ঝুঁকছেন। ফলে দিন দিন হারিয়ে যাচ্ছে গরু, মহিষ, লাঙল, জোয়াল দিয়ে জমিতে হাল চাষ।

উপজেলার ভবানীপুর গ্রামের কৃষক ওয়াজেদ আলী প্রামানিক বলেন, ছোটবেলায় হাল চাষের কাজ করতাম। বাড়িতে হাল চাষের বলদ গরু ছিল ২-৩ জোড়া। চাষের জন্য দরকার হতো ১ জোড়া বলদ, কাঠের তৈরি লাঙল, বাঁশের তৈরী জোয়াল, মই, লরি (বাঁশের তৈরি গরু তাড়ানোর লাঠি), গরুর মুখে টোনা ইত্যাদি।

আগে গরু দিয়ে হাল চাষ করলে জমিতে ঘাস কম হতো। অনেক সময় গরুর গোবর জমিতে পড়ত, এতে করে জমিতে অনেক জৈবসার হতো। ক্ষেতে ফলন ভালো হতো। এখন নতুন নতুন আধুনিক বিভিন্ন মেশিন এসেছে সেই মেশিন দিয়ে এখানকার লোকজন জমি চাষাবাদ করে। তাই এখনো গরু, মহিষ, লাঙল, জোয়াল নিয়ে জমিতে হাল চাষ করা এখন হারিয়ে যেতে বসেছে।

গরুর লাঙল দিয়ে প্রতিদিন প্রায় ৬৬ শতাংশ জমি চাষ করা সম্ভব। আধুনিক যন্ত্রপাতির থেকে গরুর লাঙলের চাষ গভীর হয়। জমির উর্বরতা শক্তি বৃদ্ধি ও ফসলের চাষাবাদ করতে সার, কীটনাশক কম লাগতো। দিনে দিনে এভাবেই ধীরে ধীরে হারিয়ে যাচ্ছে আমাদের গ্রামবাংলার ঐতিহ্য। আর গরুর গাড়ী শুধু দেখা যায় ১ বৈশাখ পালন করতে।





আর্কাইভ

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)