শিরোনাম:
●   ফেনসিডিল সহ মাদক ব্যবসায়ী নবাব আটক ●   উদ্বোধনের আগেই দেবে গেলো আত্রাই আঞ্চলিক মহাসড়ক ●   ইচ্ছা মানব উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে সিলেটে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের মাঝে ত্রাণ বিতরণ ●   বন্যার্তদের মধ্যে সেনাবাহিনীর খাদ্যসামগ্রী বিতরণ ●   বিদ্যালয়ের গ্রধান শিক্ষিকা উঁকুন তোলেন শিক্ষার্থীদের দিয়ে ●   গলায় ফাঁস দিয়ে বিশ্বনাথে বৃদ্ধের আত্মহত্যা ●   স্বপ্নের পদ্মা সেতু উদ্বোধন খাগড়াছড়িতে উৎসবের আমেজ ●   পদ্মা সেতু উদ্বোধনে কুষ্টিয়ায় বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা ●   পদ্মা সেতু দক্ষিণাঞ্চলের কৃষকের অর্থনীতির ইতিবাচক পরিবর্তন হবে ●   বিয়েতে রাজি না হওয়াতে রেজাউল পুত্র শাহারিয়ার মিথ্যা মামলায় এলাকা ছাড়া ●   বন্যা কবলিতদের সাহায্যার্থে বন্ধুত্বের বন্ধন মীরসরাই-২০০২ব্যাচ ●   পোড়াতে না পারায় পাথর বেঁধে সুরমা নদীতে লাশ ●   এপাড়-ওপাড় বাংলার শিক্ষার্থীদের এক মিলনক্ষেত্র রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয় ●   নবীন গবেষকদের জন্য দিক-নির্দেশনামূলক ওয়েবিনার ●   পদ্মা সেতুর মাধ্যমে নিজেদের ভাগ্য উন্নয়নের স্বপ্ন দেখছে ঝালকাঠিসহ দক্ষিণাঞ্চলের কৃষিজীবী ও পর্যটন শিল্পে জড়িতরা ●   মোরেলগঞ্জে কারিগরি কলেজে এইচএসসি ফর্ম ফিলাপের নামে অতিরিক্ত অর্থ আদায় ●   হিল উইমেন্স ফেডারেশন পুনর্গঠিত : নীতি সভাপতি ও রিতা সম্পাদক ●   বহুমুখী সমস্যা ও পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে সংকটের মুখে মৃৎ শিল্প ●   কালের স্বাক্ষী গান্ধী আশ্রম হতে পারে পর্যটন কেন্দ্র ●   আত্রাইয়ে আ’লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন ●   ঝিনাইদহে আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত ●   বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত সাংবাদিকদের পাশে দাঁড়ালেন শফিক চৌধুরী : বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে আরো একাধিক সংবাদ ●   মিরসরাইয়ে ৪ হাজার ৭ শত ইয়াবা সহ গ্রেফতার-৩ ●   কাউখালীতে সাত দিনের আবাসিক সাঁতার প্রশিক্ষণ শেষ হয়েছে ●   বন্যার পানিতে ডুবে বিশ্বনাথে ৬ জনের মৃত্যু : নিখোঁজ শিশু ●   বালতির পানিতে ডুবে শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু ●   আক্কেলপুরে বাইক বিস্ফোরণে চালক দগ্ধ ●   কুষ্টিয়া মৎস্য কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ১৬টি পুকুর খননের অর্থ লোপাটের অভিযোগ ●   ময়মনসিংহকে শিক্ষা নগরী থেকে প্রযুক্তি নগরীতে রূপ দিতে ১৫৩ কোটি টাকা ব্যয়ে হাইটেক পার্ক হচ্ছে : পলক ●   গাবতলীতে জেলেদের মাঝে ভ্যান গাড়ী বিতরণ
রাঙামাটি, সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ১৩ আষাঢ় ১৪২৯



CHT Media24.com অবসান হোক বৈষম্যের
সোমবার ● ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১
প্রথম পাতা » নওগাঁ » ঘুরে এলাম প্রকৃতির লীলাভুমি নয়নাভিরাম চলনবিল
প্রথম পাতা » নওগাঁ » ঘুরে এলাম প্রকৃতির লীলাভুমি নয়নাভিরাম চলনবিল
৫২৫ বার পঠিত
সোমবার ● ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

ঘুরে এলাম প্রকৃতির লীলাভুমি নয়নাভিরাম চলনবিল

ছবি : সংবাদ সংক্রান্ত-নাজমুল হক নাহিদ।নাজমুল হক নাহিদ, সিংড়া (নাটোর) চলনবিল থেকে ফিরে :: বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় বিলের নাম চলনবিল। এ বিলের যে দিকে চোখ যায় শুধুই জলরাশি। সে বিস্তৃত জলরাশি জুড়ে ঢেউয়ের খেলা। মাঝে মধ্যে দিগন্ত রেখায় সবুজের আলপনা। এরমধ্যে ঢেউ ভেঙে ছুটে চলেছে শ্যালো নৌকা। আছে মাছধরার নানা আয়োজনও। এটাই বর্ষা মৌসুমের চলন বিল।

চলনবিল নামটা শুনলেই তো চোখের সামনে ভেসে ওঠে থইথই পানির জলে উথালপাতাল ঢেউয়ের দৃশ্য। তবে সবসময় এই রূপের দেখা মেলে না। ষড়ঋতুর এই দেশে চলনবিলও নানা রুপ পাল্টায়। বর্ষায় যেমন এই বিলের বিশালতা বাড়ে, গ্রীষ্মে ততটাই রুক্ষ রূপ ধারণ করে। শরতে শান্ত জলরাশির ওপর ছোপ ছোপ সবুজ রঙের খেলা। হেমন্তে পাকা ধান আর সোঁদা মাটির গন্ধে ম–ম করে চারদিক। শীতে হলুদ আর সবুজের নিধুয়া পাথার যেন অন্য আকর্ষণে রূপ নেয়। তবে যে যাই বলুক বা ভিন্ন রূপেরই প্রেমে পড়ুক, চলনবিলের মূল আকর্ষণ কিন্তু নৌকাভ্রমণ।

দেশের বিস্তৃত এক জলাভূমির নাম চলনবিল। নাটোর-সিরাজগঞ্জ-পাবনা জেলার বিস্তীর্ণ এলাকা জুড়ে এ বিলের অবস্থান। শুকনো মৌসুমে বিলের আয়তন অনেক কমে গেলেও তা প্রাণ ফিরে পায় বর্ষাকালে। তাই ভ্রমণ পিপাসুদের এই মৌসুমে চলনবিল হতে পারে উপযুক্ত গন্তব্য। নাটোর, সিরাজগঞ্জ, পাবনা ও বগুড়া জেলাজুড়ে ছড়িয়ে থাকা ছোট ছোট অনেকগুলো বিলের সমষ্টি এই চলনবিল। সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ ও পাবনার চাটমোহর—উপজেলা দুটির অধিকাংশ স্থান জুড়ে বিস্তৃত চলনবিল। এর দক্ষিণ-পূর্ব প্রান্ত পাবনার নুননগরের কাছে অষ্টমনীষা পর্যন্ত বিস্তৃত। এ জেলায় চলন বিলের উত্তর সীমানা হচ্ছে সিংড়ার পূর্ব প্রান্ত থেকে ভদাই নদী পর্যন্ত টানা রেখাটি যা নাটোর, পাবনা ও বগুড়া জেলার মধ্যবর্তী সীমানা নির্দেশ করে।

১৯৬৭ সালে প্রকাশিত ‘চলনবিলের ইতিকথাথ বই থেকে জানা যায়, ১৮২৭ সালে জনবসতি এলাকা বাদ দিয়ে চলনবিলের আয়তন ছিল প্রায় ১৪২৪ বর্গকিলোমিটার। এরপর ১৯০৯ সালে চলনবিল জরিপের এক প্রতিবেদনে আয়তন দেখানো হয় প্রায় ৩৬৮ বর্গকিলামিটার।

প্রধান ৩৯টি বিলসহ মোট ৫০টির বেশি বড় বিলের সমন্বয়ে তৈরি হয়েছে চলনবিল। ছোট ছোট অসংখ্য বিল খালের মাধ্যমে এসে যুক্ত হয়েছে চলনবিলেল সঙ্গে। পিপরূল, লারোর, ডাঙাপাড়া, তাজপুর, নিয়ালা, মাঝগাঁও, চোনমোহন, শাতাইল, দারিকুশি, গজনা, বড়বিল, সোনাপাতিলা এবং ঘুঘুদহ তেমনি কিছু বিলের নাম। চলন বিলের বুকে মিশে গেছে করতোয়া, আত্রাই, গুড়, বড়াল, মরা বড়াল, তুলসী, ভাদাইসহ বেশ কয়েকটি নদীও।

যেকোনো ঋতুতে চলনবিলের মূল আকর্ষণ নৌকাভ্রমণ। চলনবিলের জলরাশি কখনও স্থির ছিল না। পূর্ব থেকেই এর জলরাশি স্রোতপূর্ণ। বিলের পানি সাধারণত স্থির এবং বদ্ধ হওয়ার কথা। কিন্তু আজও বর্ষাকালে চলনবিলের পানিতে অস্থির স্রোত বয়। এ কারণে বিলটির এই নাম। সরদার আব্দুল হামিদ তার ‘চলনবিলের ইতিকথাথ বইয়ে এ প্রসঙ্গে বিস্তারিত আলোচনা করেছেন।

একসময় ‘মাছেদের বাড়িথ বলা হতো চলনবিলকে। দেশি প্রজাতির নানা মাছে এই বিল ভরপুর ছিল। বিলের মাছ ট্রেনযোগে যেত বর্তমান ভারতের পশ্চিমবঙ্গে। সেখানকার অভিজাত মানুষেরা চলনবিলের মাছ দিয়ে ভোজে মাততেন। এখন তেমনটি না থাকলে বহু প্রজাতির দেশি মাছের দেখা মিলবে বিলে। মাছে সমৃদ্ধ চলনবিলে এখনও পাওয়া যায়- চিতল, মাগুর, কৈ, শিং, বোয়াল, টাকি, শোল, মৃগেল, চিংড়ি, টেংরা, কালিবাউশ, রিটা, মৌসি, গজার, বৌ, সরপুটি, পুঁটি, গুজা, গাগর, বাঘাইর
কাঁটা, তিতপুটিসহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছ।





google.com, pub-4074757625375942, DIRECT, f08c47fec0942fa0

আর্কাইভ

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)