শিরোনাম:
●   রাউজানে উৎপাদিত রাবার দেশের চাহিদা মিটিয়ে রপ্তানি হচ্ছে বিদেশে ●   আত্রাইয়ে গ্রাম পুলিশের মাঝে বাইসাইকেল বিতরণ ●   দীঘিনালায় ইউএনও’র হস্তক্ষেপে বাল্য বিয়ে বন্ধ ●   মোরেলগঞ্জে পুলের অভাবে শিক্ষার্থীরা ঝুঁকি নিয়ে পার হচ্ছে সাঁকো ●   নবীগঞ্জে বিশুদ্ধ খাবার পানির তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে ●   এক মাস উনিশ দিন পর জয়পুরহাট থেকে কিশোরী উদ্ধার : অপহরণকারী গ্রেপ্তার ●   নিখোঁজের ৫ দিন পর পুকুর থেকে বৃদ্ধের লাশ উদ্ধার ●   আত্রাইয়ে গাঁজাসহ আটক-২ ●   কাপ্তাইয়ে একদিনে আরো ৪৪ জনের করোনা শনাক্ত ●   রুমা পর্যটন স্পট হিসেবে আনন্দঘন ও সুন্দর : রুমা - বান্দরবান সড়কটি আরও উন্নয়ন করা দরকার ●   গাজীপুর জেলা ক্রীড়া অফিসের আয়োজনে অটিজম ছেলে-মেয়েদের ক্রীড়া ●   মোরেলগঞ্জে যৌন হয়রানির অভিযোগে প্রধান শিক্ষক গ্রেফতার ●   বিশ্বনাথে ৫৪৩৮ শিক্ষার্থীকে করোনার ভ্যাকসিন প্রদান ●   রাঙামাটির কাউখালী থেকে দুই নাবালিকা অপহরণ : মাদারীপুরে উদ্বার আটক-১ ●   দাযরা জজ আদালতের স্থগিতাদেশ অমান্য করে সন্ত্রাসীর কায়দায় প্রতিপক্ষের বাগানের গাছ কর্তন ●   ঘোড়াঘাটে ২ নারীর লাশ উদ্ধার ●   ৬৯ এর গণ অভ্যুত্থানের বীর শহীদ আসাদের প্রতি বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির শ্রদ্ধা জ্ঞাপন ●   যারা র‌্যাব তৈরি করেছিল, এখন তারাই আবার র‌্যাবকে অপছন্দ করছে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ●   বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড, গুম ও নির্যাতনের অভিযোগ তুলে জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশন থেকে র‌্যাবকে নিষিদ্ধের দাবি জানিয়েছে ১২টি আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা ●   ঈশ্বরগঞ্জে জমি সংক্রান্ত বিরোধে সংঘর্ষ আহত-৫ ●   ঝালকাঠিতে ভুয়া ডিবি আটক ●   মোরেলগঞ্জে কোভিড-১৯ প্রতিরোধে ধর্মীয় নেতৃবৃন্দের লিফলেট বিতরণ ●   চুয়েটে দুইদিনব্যাপী পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের ৪র্থ আন্তর্জাতিক কনফারেন্স শুরু হচ্ছে শনিবার ●   ময়মনসিংহ মেডিকেলের করোনা ইউনিটে করোনা ও উপসর্গে আরও ৩ জনের মৃত্যু ●   বিশ্বনাথে গাভীর খামার করে স্বাবলম্বী ফখরুল ●   গাবতলীতে জিয়াউর রহমানের ৮৬তম জন্মবার্ষিকী পালিত ●   কুষ্টিয়ায় অবৈধ ভাটা ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়ার এক সপ্তাহের ব্যবধানে চালু ●   রাউজানে মাদকসহ আটক-৪ ●   আত্রাইয়ে বিষপানে গৃহবধূর আত্মহত্যা ●   ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ও সেনাপ্রধান মনোজ এর বিরুদ্ধে লন্ডনে মামলা
রাঙামাটি, সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ১১ মাঘ ১৪২৮



CHT Media24.com অবসান হোক বৈষম্যের
শনিবার ● ২৭ নভেম্বর ২০২১
প্রথম পাতা » রাজনীতি » ভারতে কৃষক জাগরণের বিজয়ের বার্তা-সাইফুল হক
প্রথম পাতা » রাজনীতি » ভারতে কৃষক জাগরণের বিজয়ের বার্তা-সাইফুল হক
১০৬ বার পঠিত
শনিবার ● ২৭ নভেম্বর ২০২১
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

ভারতে কৃষক জাগরণের বিজয়ের বার্তা-সাইফুল হক

---ভারতে এক বছর ধরে চলা অভূতপূর্ব কৃষক আন্দোলন - কৃষক জাগরণের প্রাথমিক বিজয় হয়েছে।প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আন্দোলনরত কৃষক ও ভারতের জনগণের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করে কৃষি ও কৃষক বিরোধী বিতর্কিত তিনটি কৃষি আইন প্রত্যাহার করে নেবার ঘোষণা দিয়েছেন।ভারত স্বাধীন হবার পর কৃষক-জনতার আন্দোলনের এটা গুরুত্বপূর্ণ সাফল্য সন্দেহ নেই। মোদি আন্দোলনরত কৃষকদেরকে এবার ঘরে ফিরে যাওয়ারও আহবান জানিয়েছেন।
কিন্তু আন্দোলনের নেতৃত্ব প্রদানকারী সংযুক্ত কিষাণ মোর্চার নেতৃবৃন্দ ইতিমধ্যে নিজেদের মধ্যে আলাপ আলোচনা করে জানিয়ে দিয়েছেন যে, ভারতের আইনসভায় কৃষক বিরোধী আইনসমূহ পুরোপুরি প্রত্যাহার না করা পর্যন্ত তারা তাদের অবস্থান- অবরোধ অব্যাহত রাখবেন। তারা মোদির ঘোষণায় আশ্বস্ত হতে পারছেন না।মোদি সরকার শেষ পর্যন্ত তাদের ওয়াদা রাখে কিনা তাও তারা দেখতে চান।কৃষিপণ্যের নূন্যতম মূল্য নির্ধারণ( এম এস পি) সহ কৃষক আন্দোলনের আরও কিছু জরুরী দাবি সরকার তথা পার্লামেন্টের কাছে তারা তুলে ধরার পরিকল্পনা করছেন।এই আন্দোলনে যে ৭০০ মানুষ শহীদ হয়েছেন, জীবন বিসর্জন দিয়েছেন তাদের পরিবারসমূহের পুনর্বাসনের দায়ও তো সরকারের রয়েছে। এসব নিয়েও তারা নিশ্চয় কথা বলবেন। তেলেংগানা রাজ্য সরকার এরই মধ্যে প্রত্যেক শহীদ পরিবারকে তিন লক্ষ রুপি করে দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে। দাবির মধ্যে রয়েছে উত্তরপ্রদেশের লখিমপুর খেরীতে মন্ত্রীর গাড়িবহরের নীচে চাপাদিয়ে কৃষক হত্যার বিচার, প্রতিমন্ত্রীকে অপসারণসহ নানা জরুরী দাবি।
গতবছর বিশেষ কোন আলোচনা ছাড়া ভারতের লোকসভায় খানিকটা আকস্মিকভাবে হাততুলে ও পরে তড়িঘড়ি করে রাজ্যসভায় কৃষি সংক্রান্ত তিন আইন পাশ করে নেবার পর ২৬ নভেম্বর থেকে কৃষকেরা,বিশেষ করে পাঞ্জাবের কৃষকদের এই প্রতিবাদী আন্দোলন - অবস্থানের সূত্রপাত।পর্যায়ক্রমে আন্দোলনের সাথে যুক্ত হয় হরিয়ানা, হিমাচল, উত্তরপ্রদেশ, মহারাষ্ট্রসহ প্রায় গোটা ভারতের কৃষকেরা।প্রবল শীত, বৃষ্টি, করোনা মহামারী দূর্যোগ নানা বৈরী পরিবেশ মোকাবেলা করে জানবাজী এক লডাইয়ে সামিল হয় লক্ষ লক্ষ কৃষক জনতা; তাদের পিছনে দাঁড়িয়ে যায় কোটি কোটি মানুষ। লক্ষ কৃষকের অভিযান দিল্লির লালকেল্লা পর্যন্ত পৌঁছে যায়। রাজধানী দিল্লির চার পাশে তারা অবস্থান - অবরোধ গড়ে তোলে।সিংঘু,টিক্কর,গাজিপুরের মত দিল্লির সীমান্তবর্তী এলাকাসমূহ হয়ে উঠে কৃষকদের অবস্থান - অবরোধের বিরাট বিরাট ঘাটি।শত শত তাবু গেড়ে এখানেই মাসের পর মাস থাকা - খাওয়া।পাঞ্জাব - হরিয়ানার মত রাজ্যগুলোতে পুরুষেরা যখন আন্দোলনের কাফেলায় নারীরা তখন ঘর -গৃহস্থালী আর ফসলের মাঠ সামাল দিয়েছে। আবার ফসল তোলার বিশেষ বিশেষ সময়ে পুরুষদের যখন বাড়ি যেতে হয়েছে নারীরা তখন এসে আন্দোলনে, অবস্থান - অবরোধে সামিল হয়েছে। ভারতের ক’টি রাজ্যের প্রায় সমগ্র জনগোষ্ঠী, গোটা পরিবার ছিল আন্দোলনে সমর্পিত,ঘর আর বাহির ছিল একাকার।ভারতবর্ষ, গোটা দুনিয়া এরকম দৃশ্য বেশী দেখেনি।কৃষক আন্দোলনে এ এক বিরল ঘটনা।
শুরু থেকেই এই আন্দোলনের বিরুদ্ধে সরকার ছিল খড়গহস্ত।কৃষকদের দিল্লি অভিযানে সরকারি বাহিনী নির্যাতন - নিপীড়নের কমতি রাখেনি।লাঠি,গুলি,টিয়ার গ্যাস, জলকামান, অন্তর্ঘাতমূলক তৎপরতা - কোন কিছুই তারা বাদ রাখেনি।রাস্তা কেটে, রাস্তায় পেরেক বসিয়ে কৃষকদের শোভাযাত্রায় তারা নানাভাবে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করেছে।
চলাকালে বার কয়েক সরকারের নীতিনির্ধারকদের তাদের আলাপ আলোচনা হয়েছে। আলোচনা চলাকালে আত্মমর্যাদা বজায় রেখে সরকারি খাবারও তারা স্পর্শ করেননি।আর আলোচনার পিছনে ছিল নানা ধরনের চাপ,হুমকি,প্রলোভন, প্রতারণার বহুরকম কৌশল।ছিল এই আন্দোলনের বিরুদ্ধে বহুমাত্রিক অপপ্রচার। আন্দোলনকারীদেরকে দেশদ্রোহী, স্বাধীন খালিস্থানপন্থী,জেহাদি,আন্দোলনকারীরা কৃষকবেশী পাকিস্তানি, আন্দোলনজীবী, নক্সাল প্রভৃতি কত বিশেষণেই না অভিহিত করা হয়েছে! আন্দোলনে ভাগ - বিভাজন তৈরি করা, আন্দোলন সম্পর্কে হতাশা ছড়ানো,সাম্প্রদায়িক আর জাতিগত উসকানি কোন কিছুই বিজেপি আর মোদি সরকার বাকি রাখেনি।
কিন্তু কোন কিছুই কৃষকদেরকে পরাভূত করতে পারেনি, তাদের বজ্রকঠিন ঐক্যে ফাটল ধরাতে পারেনি।কারন লড়াইটা তাদের অস্তিত্বের, তাদের জীবন জীবিকা রক্ষার।এজন্য প্রয়োজন ছিল তাদের মরীয়া লড়ায়ের।কৃষকেরা বুঝেছেন , কৃষিপণ্য সরকার না কিনে যদি করপোরেটদের হাতে ছেড়ে দেয়া হয় তাহলে ন্যুনতম মূল্য সহায়তা থেকে তারা বঞ্চিত হবেন; কৃষি বানিজ্যে করপোরেট সংস্থাসমূহ ঢুকে গেলে খাদ্যশস্য মজুদের কোন উর্ধসীমা থাকবে না এবং খাদ্যপণ্যের দাম বাড়ানোর ক্ষমতা চলে যাবে ব্যবসায়ী করপোরেটদের কাছে এবং এই পরিস্থিতিতে ভারতের কৃষি ও কৃষক নানাভাবে বিপর্যস্ত হবে।
সন্দেহ নেই শিখ ধর্মগুরু নানকের জন্ম বার্ষিকীতে ভারতের কৃষি বিরোধী তিন আইন প্রত্যাহারের ঘোষণায় রাজনৈতিক সমীকরণটাও খুব অস্পষ্ট নয়।আগামী বছরের শুরুর দিক থেকে উত্তরপ্রদেশ,পাঞ্জাব,উত্তরাখণ্ড, মণিপুর , গোয়ায় বিধান সভার যেসব গুরুত্বপূর্ণ নির্বাচন তাতে বিজেপির সম্ভাব্য ধস ঠেকানো, বিশেষ করে উত্তরপ্রদেশ থেকে যাতে বিজেপিকে পাততাড়ি গুটাতে না হয় তার জন্য মোদিকে তার দাম্ভিকতা ভুলে করজোড়ে নতি স্বীকার করতে হয়েছে। এই ঘটনার সমগ্র তাৎপর্য বুঝতে হয়তো আরও কিছু সময় লাগবে।
কৃষক - জনতার এই প্রতিরোধ বিজেপি ও হিন্দুত্ববাদী মোদি সরকারকে ইতিমধ্যে ভারত জুড়ে বিভিন্ন দিক থেকে কড়া বার্তা দিয়েছে, তাদের বেপরোয়া পদক্ষেপে অনেকটা লাগাম দিয়েছে। এখন বিভেদ আর বিভাজন সৃষ্টিকারী এন আর সি বা নাগরিকপঞ্জির মত চরম অগণতান্ত্রিক, বৈষম্যমূলক,সাম্প্রদায়িক ও ভারতের সংবিধান পরিপন্থী আইনসমূহ প্রত্যাহার করে নেবার আন্দোলন নিশ্চয় নতুন গতি পাবে।
কৃষক আন্দোলনের এই বিজয় ভারতের বামপন্থী প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক শক্তিরও এক বড় বিজয়। এই আন্দোলনের শুরু থেকে শেষঅব্দি তারা এই আন্দোলনে অসাধারণ ভুমিকা পালন করেছেন। তাদের আপোষহীন ভূমিকাও এই বিজয়ে এক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে।
ভারতের ট্রেড ইউনিয়নসহ শত ধরনের সংগঠন কৃষক - কিষাণীর এই ঐতিহাসিক কাফেলায় নিজেদেরকে যুক্ত করেছিলেন। এই আন্দোলন যে এখন ভারত জুড়ে অসংখ্য শ্রেণী ও গণসংগ্রামের উৎসমুখ খুলে দেবে, মেহনতি জনগণের আত্মবিশ্বাস ও সাহস বাড়িয়ে দেবে তা অনুমান করা কঠিন নয়।কৃষক আন্দোলনের এই বিজয় গোটা ভারত জুড়ে চরম হিন্দুত্ববাদী আর নিষ্টুর বিজেপির শাসনের জয়রথকে পিছু হঠাতেও বরফভাংগার কাজ করবে।কৃষকেরা আরও একবার প্রমাণ করল রাষ্ট্রশক্তি আর শাসকদের দম্ভ আর অহমিকা নয়, জনগণ আর জনগণের আকাংখা আর তাদের সম্মিলিত প্রতিরোধী শক্তিই হচ্ছে শেষ পর্যন্ত নির্ধারক শক্তি।

নিউ ইস্কাটন
২৩ নভেম্বর-২০২১





google.com, pub-4074757625375942, DIRECT, f08c47fec0942fa0

রাজনীতি এর আরও খবর

শৈলকুপায় হত্যা মামলার আসামী পেলেন নৌকার মনোনয়ন শৈলকুপায় হত্যা মামলার আসামী পেলেন নৌকার মনোনয়ন
প্রতিক পেলেন লামাকাজী- খাজাঞ্চী ইউপির ১২৭ প্রার্থী চেয়ারম্যান ৯, মেম্বার ৯৩ ও মহিলা মেম্বার ২৫ প্রতিক পেলেন লামাকাজী- খাজাঞ্চী ইউপির ১২৭ প্রার্থী চেয়ারম্যান ৯, মেম্বার ৯৩ ও মহিলা মেম্বার ২৫
কি কারণে ঝিনাইদহে ইউপি নির্বাচনে নৌকা প্রতিকের ভোট বিপর্যয় কি কারণে ঝিনাইদহে ইউপি নির্বাচনে নৌকা প্রতিকের ভোট বিপর্যয়
স্বামী কোথায় আছে, জানার অধিকারও কি আমার নেই : লুনা স্বামী কোথায় আছে, জানার অধিকারও কি আমার নেই : লুনা
আ’লীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কারের দাবিতে মানববন্ধন আ’লীগ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কারের দাবিতে মানববন্ধন
ঝালকাঠিতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিত ঝালকাঠিতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিত
হরিণাকুন্ডুতে নৌকা প্রার্থী নিমাই চাঁদ মন্ডল ৪২ ভোট পেয়ে হারালেন জামানত হরিণাকুন্ডুতে নৌকা প্রার্থী নিমাই চাঁদ মন্ডল ৪২ ভোট পেয়ে হারালেন জামানত
শৈলকুপায় নির্বাচনি সহিংসতায় নিহত ৬ শৈলকুপায় নির্বাচনি সহিংসতায় নিহত ৬
নির্বাচন কমিশন গঠনকল্পে মহামান্য রাষ্ট্রপতির সংলাপ অপ্রয়োজনীয় ও প্রচারসর্বস্ব : বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি নির্বাচন কমিশন গঠনকল্পে মহামান্য রাষ্ট্রপতির সংলাপ অপ্রয়োজনীয় ও প্রচারসর্বস্ব : বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি
কুষ্টিয়া সদরের ইউপি নির্বাচনে ১১টির মধ্যে ১টি নৌকা, ১০টিতে স্বতন্ত্র জয়ী কুষ্টিয়া সদরের ইউপি নির্বাচনে ১১টির মধ্যে ১টি নৌকা, ১০টিতে স্বতন্ত্র জয়ী

আর্কাইভ

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)