শিরোনাম:
●   রাজস্থলীতে মৎস্য খাদ্য উপকরণ বিতরণ ●   সাব-রেজিস্ট্রার হত্যা মামলায় কুষ্টিয়াতে ৪ জনের ফাঁসি ●   ময়মনসিংহ মেডিকেলের করোনা ইউনিটে করোনা উপসর্গে আরও ২ জনের মৃত্যু ●   ব্যাংক ঋন গ্রহনের ক্ষেত্রে মুক্তিযোদ্ধাদের জিম্মাদার হিসেবে গন্য করার আহবান ●   ইউ’পি চেয়ারম্যানসহ ঘোড়াঘাটে ৬ জুয়াড়ি আটক ●   করোনায় মারা গেলেন তায়েফ ●   ময়মনসিংহ মেডিকেলের করোনা ইউনিটে করোনা উপসর্গে আরও ৪ জনের মৃত্যু ●   গলায় ছোরা চালিয়ে যুবকের আত্মহত্যা ●   রাজস্থলীতে সেনাবাহিনীর উদ্যোগে মতবিনিময় সভা ●   পানছড়িতে ভারতীয় অবৈধ মালামাল জব্দ ●   চট্টগ্রামে অনুষ্ঠিত হলো উদ্যোক্তাদের সম্মেলন ●   তৃনমূল নেতাকর্মীরাই আওয়ামীলীগের প্রান : তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ●   আত্রাইয়ে শিশুদের জন্য নির্মিত হলো দৃষ্টিনন্দন শিশুপার্ক ●   চট্টগ্রামে র‌্যাবের অভিযানে অস্ত্রসহ আটক-২ ●   ময়মনসিংহ মেডিকেলের করোনা ইউনিটে করোনা ও উপসর্গে আরও ২ জনের মৃত্যু ●   বান্দরবানে পর্যটকবাহি বাসে গুলি : আহত-২ ●   কাকের প্রতি ‘বিরল ভালবাসা’ আত্রাইয়ের সায়মা বিবি’র ●   পোকা নিধনে ‘আলোক ফাঁদ’ ●   ঔষধ দিয়ে মিলছে না সুফল ●   ময়মনসিংহ মেডিকেলের করোনা ইউনিটে করোনা উপসর্গে আরও ১ জনের মৃত্যু ●   বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি নাটোর জেলা কমিটির বর্ধিত সভা ●   কাভার্ড ভ্যান চাপায় দুই বন্ধু নিহত ●   রাউজানে রাস্তা খনন কাজের সময় পাইপ ফেটে বের হয়েছে গ্যাস ●   যুবককে গলা কেটে মোটরসাইকেল ছিনতাই ●   মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে মানববন্ধন ●   কুষ্টিয়ায় প্রধানমন্ত্রীকে ফেসবুকে কটূক্তি করায় যুবক আটক ●   বিশ্বনাথে দিন দুপুরে চুরি- নগদ টাকা স্বর্ণলংকার লুট ●   ভাড়া ভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের মেয়াদ আরও পাঁচ বছর বৃদ্ধি করায় বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির নিন্দা ●   ময়মনসিংহ মেডিকেলের করোনা ইউনিটে করোনা ও উপসর্গে আরও ৬ জনের মৃত্যু ●   ইভ্যালির সিইও এবং চেয়ারম্যান গ্রেপ্তার
রাঙামাটি, বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৭ আশ্বিন ১৪২৮


CHT Media24.com অবসান হোক বৈষম্যের
রবিবার ● ১ নভেম্বর ২০২০
প্রথম পাতা » এক্সক্লুসিভ » স্মৃতি কথা : পর্ব-১
প্রথম পাতা » এক্সক্লুসিভ » স্মৃতি কথা : পর্ব-১
৩৯৩ বার পঠিত
রবিবার ● ১ নভেম্বর ২০২০
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

স্মৃতি কথা : পর্ব-১

ছবি : আমার প্রয়াত বাবা রোহিনী রঞ্জন বড়ুয়া।আমার বয়স তখন মাত্র সাত বছর। সাল টা ছিলো ১৯৭১ সাল তখন আমাদের সাজা গোছানো বাড়ি ছিলো। বর্তমান রাঙামাটি শহরের ভেদ ভেদী সড়ক ও জনপথ বিভাগের কারখানা (যার প্রথম নাম ছিলো চেঙ্গি ভ্যেলি প্রজেক্ট) এর স্থানে।
তৎকালিন পাকিস্থান সরকারের বিরুদ্ধে বাঙলার মুক্তি বাহিনীর যুদ্ধ। এখন সব স্মৃতি স্পষ্ট মনে নেই তার যেটুকু মনে আছে তা লেখার প্রয়াস মাত্র।
বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ দেখেছি, মনে পড়ে সেই সময়ের রাজাকারদের বর্বরতার কথা, বড়ুয়াদের চায়না বুড্ডিষ্ট ডান্ডি কার্ড দিয়ে হাজার-হাজার হিন্দুদের প্রাণ রক্ষার কথা, মুসলমানরা প্রতিবেশিদের প্রাণ রক্ষার কথা, ভারতীয় মিজোদের গুলি মেরে কুকুর খাওয়া, যোদ্ধা হিসাবে তাদের সুদক্ষ জীবন যাপনের কথা, নেপালী গুর্খাদের যুদ্ধা হিসাবে রাঙামাটিতে আগমনের কথা, চাকমা রাজা মেজর ত্রিদিব রায়ের রাজবাড়িতে শত-শত অস্ত্রের কথা, প্রতি রাত্রি চাকমা রাজাকারদের বাড়ি-বাড়ি গিয়ে বাড়ি তল্লাশীর কথা এবং মনে পড়ছে হানাদার বাহিনীর সদস্যরা স্থানীয় বাঙালীদের প্রতিদিন ট্রাক ভর্তি করে (বর্তমান ভেদ ভেদী আনসার ক্যাম্প ও বর্তমান রেডিও সেন্টার) এলাকায় লাশ ফেলে দেয়ার কথা।
সেই সময়ে গভর্নর হাউজে (বর্তমান সার্কিট হাউজ) পাকিস্থানী আর্মির অফিসারগণ এবং তার সামনের বিল্ডিংয়ে (বর্তমান বাংলাদেশ আর্মি অফিসার মেস) থাকতো পাকিস্থানী পক্ষের ভারতীয় মিজুরা, যেখানে পাকিস্থানীরা নারীদের ধর্ষণ করার পর রাখা হতো বিরঙ্গনা অফিস পরবর্তীতে সিও অফিস (বর্তমান রাঙামাটি সদর উপজেলা প্রশাসনের কার্যালয়) , আর রাঙামাটি সরকারী কলেজে ছিলো পাকিস্থানী আর্মির ক্যাম্প সেই ক্যাম্প কমান্ডারের নাম ছিলো ক্যাপ্টন রমজান। বাবা যখন তার ব্যবসার জন্য কাটাছড়ির চাকমা জেলেদের কাছ থেকে মাছ নিতে কলেজ গেইট আসতেন আমি তখন প্রায় সময় বাবার সাথে যেতাম।
বয়সের কারণে সঠিক দিন তারিখ মনে নেই, একবার রাত ৮টার দিকে আমাদের বাড়িতে বেশ কিছু চাকমা রাজাকার গিয়ে ঘরের দরজায় লাথি মারে বলে, “গিড়ি হন্না আঘহ্ ভিধিরে ? ঝাদি ঘরত্তোন নিঘিলি আয়” (গৃহি কে ঘরের ভিতর আছো ? তাড়াতাড়ি ঘর থেকে বের হয়ে আসো)। আমার বাবা ঘর থেকে বের হয়ে রাজাকারদের সাথে কথা বলে বিদায় করে দিল। রাজাকারা চলে যাওয়া পর আমি ঘুমিয়ে পড়ি, হঠাৎ আমার ঘুম ভেঙ্গে গেল, চোখ খুলে দেখি বাবা আমাকে কোলে নিয়ে আমাদের বাড়ি থেকে বেশ কিছু দুরে খলিল ফকিরের বাড়ি দ্রুত চলে আসলেন, ওখানে গিয়ে দেখি ঘরের ভিতর অনেক-লোকজন আশ্রয় নিয়ে আছেন। সেই রাতের ঘটনা সম্পর্কে মা-বাবা পরে আমাকে অনেক বার বলেছেন, পাকিস্থানী পাঞ্জাবী-রাজাকারের ভয়ে আমার ছোট ভাইকে কোলে নিয়ে পালিয়ে গিয়ে খলিল ফকিরের বাড়িতে আশ্রয় নেন (বর্তমানে টিএন্ডটি মাক্রোওয়েভ অফিস ভেদ ভেদী), মা কেবল কোলের শিশু ছোট ভাইকে নিয়ে পালিয়ে ছিলেন, পরে আমার কথা মনে পড়াতে বাবা আবার ফিরে এসে আমাকে নিয়ে যান।
পরের দিন বাবা আমাদের নিয়ে রাঙামাটি রাবার বাগানের ভিতর চিকনছড়া চলে যান, কারণ রাঙামাটি জেলার সীমান্ত এলাকায় পাকিস্থানী হানাদার পাঞ্জাবী-রাজাকারের ভয় নেই।
জঙ্গলের ভিতর চিকনছড়া গিয়ে আমরা নিরাপদে ছিলাম কিন্তু আধা সের চাউলের ঝাও খেয়ে অথবা ১টি রুটি খেয়ে দিন কাটাতে হতো। চিকনছড়া থেকে জয়নগর বড়ুয়া পাড়া তেমন দুরে নয়, অভাবের কারণে জয়নগরের মনিন্দ্র লাল বড়ুয়ার কাছে পাকিস্থানী পাঁচশত টাকা সুদে নিয়ে বাবা আমার মায়ের সাত ভরি স্বর্ণলংকার জমা রাখেন। আমার এখনো স্পষ্ট মনে আছে টিনের একটি গোল পাউডারে কৌটায় মায়ের কাছ থেকে নিয়ে বাবা আমাকে সাথে নিয়ে জয়নগরের মনিন্দ্র লাল বড়ুয়া কাছে জমা রাখেন। সেই সুদে নেয়া টাকা দিয়ে বাবা রাঙামাটি থেকে মাছ নিয়ে রাউজান ফকিরহাটে বিক্রয় করতেন এবং ফকিরহাট থেকে বাজার করে আমাদের আনতেন এবং বাবা আমাদের দুই ভাইয়ের জন্য ফকিরহাট থেকে পেরা আনতেন।
মাঝে মাঝে মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে পাকিস্থানী হানাদার বাহিনী পাঠান,পাঞ্জাবী-রাজাকারদের গোলাগুলি হলে বাবা সে দিন মাছ নিতে রাঙামাটি আসতেনা আবার কখনো মাছ না নিয়ে বাবা হেটে হেটে পাহাড়ের ঘরে ফেরৎ যেতেন।
বাবা প্রায় সময়ে মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য রাঙামাটি ও ফকিরহাট থেকে তাদের প্রয়োজনীয় বাজার করে গোপনে তাদের ক্যাম্পে পৌছে দিতেন।
একদিন বাবা খবর নিয়ে আসলেন আমাদের দেশ স্বাধীন হয়েছে। এখন থেকে আমাদের দেশের নাম বাংলাদেশ। সদ্য স্বাধীন হওয়া মানুষ দেখতে কেমন মা বাবার কাছে জানতে চায়, বাবা কিছু দিন পর আমাদের মামা বাড়ি রাউজানের খৈইয়াখালি (পূর্বগুজরা) পাঠান, চিকনছড়া থেকে পায়ে হেটে জয়নগর বড়ুয়া পাড়া তার পর মদেরমাহল (বর্তমান জলিল নগর), তার পর রিক্সা দিয়ে কাচা রাস্তায় (মাঝ পথে মাজার, রিক্সা থেকে এক হাজান গজের মত পায়ে হেটে যাওয়া লাগতো) রমজান আলির হাট তার পর পায়ে হেটে জমির মাঝ দিয়ে খেত্তিপাড়া,নতুন চৌধুরীহাট তার পর মামা বাড়ি খৈইয়াখালি। পথে যাওয়ার সময় গুলির খালি খোসা নিয়ে নিয়ে হাফ প্যান্টের পকেটে রাখতাম আর মাঝে মাঝে পকেট থেকে বের করে বাঁশির মত করে ফুক দিয়ে বাজাতাম।
মায়ের বাবা দামদর বড়ুয়া দাদু নৌকায় করে লাম্বুরহাটে চাউলের ব্যবসা করতেন, মায়ের মা দিদি মা ছিলেন বার্মার রেঙ্গুনের বার্মিজ, তবে তিনি পরিস্কার ভাবে চট্টগ্রামের ভাষায় কথা বলতেন, আমি মামা বাড়ি গেলে চুরী করে পাউডার দুধ ও সাদা ঔষধ খেতাম আর এখন বুঝি ঐ ঔষধ ছিলো এন্টাসিড, দেশ স্বাধীনের পর মামা বাড়ি গিয়ে প্রায় আমরা এক মাসের মত ছিলাম পরে বাবা গিয়ে আমাদের তিনজনকে নিয়ে আসেন।
রাউজান মদেরমাহল (বর্তমান জলিলনগর) থেকে বাস ভাড়া সেই সময়ে রাঙামাটি দুই টাকা ছিলো। রাউজান থেকে আসার সময় দেখি রানীরহাট পুল (ব্রিজ) ও মানিকছড়ি পুল (ব্রিজ) পাকিস্থানী হানাদার বাহিনী পাঠান,পাঞ্জাবী-রাজাকারা পালিয়ে যাওয়ার সময় বোমা মেরে ভেঙ্গে দিয়ে । কারণ পিছন থেকে রাঙামাটি থেকে যেন মুক্তিযুদ্ধা তাদের গাড়ি নিয়ে গিয়ে ধরতে না পারে। আমাদের বাসটি যাত্রী নামিয়ে খালি গাড়ি কাঠের ওপর দিয়ে পার করে অনেক দেরীতে রাঙামাটি পৌছি।
দেশ স্বাধীন হওয়ার পর জয়নগরের মনিন্দ্র লাল বড়ুয়া কাছে পাকিস্থানী পাঁচশত টাকার বিনিময়ে জমা রাখা আমার মায়ের সাত ভরি স্বর্ণলংকার আনতে আমি আর বাবা প্রায় দশবারের অধিক গিয়ে ছিলাম, কিন্তু সুদ ব্যবসায়ী জয়নগরের মনিন্দ্র লাল বড়ুয়া তার কাছে জমা রাখা আমার মায়ের স্বর্নলংকার আর কোন দিন ফেরৎ দেয়নি।
বাবা-মা প্রায় সময়ে সুদ খোর জয়নগরের মনিন্দ্র লাল বড়ুয়াকে অভিশাপ দিতেন পরে আমার ছোট মামা হিরামন বড়ুয়া (গুরা) কাছ থেকে জানতে পরেছি অনেক কষ্ট পেয়ে মরা গেছেন জয়নগরের সেই লোভী মনিন্দ্র লাল বড়ুয়া। চলবে….
লেখক : নির্মল বড়ুয়া মিলন
মূখ্য সম্পাদক
সিএইচটি মিডিয়া টুয়েন্টিফোর ডটকম।
তারিখ : ০১ নভেম্বর-২০২০ ইংরেজি।



google.com, pub-4074757625375942, DIRECT, f08c47fec0942fa0

এক্সক্লুসিভ এর আরও খবর

একটি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলা ও পাহাড়ের অদম্য নারী রুপালী একটি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলা ও পাহাড়ের অদম্য নারী রুপালী
তথ্য-প্রযুক্তির মাধ্যমে পার্বত্য অঞ্চলে বসে প্রতারণা করছে সংঘবদ্ধ চক্র তথ্য-প্রযুক্তির মাধ্যমে পার্বত্য অঞ্চলে বসে প্রতারণা করছে সংঘবদ্ধ চক্র
বাঘাইছড়ি হত্যাকান্ড : ভোট বর্জনকারীদের দায়ী করে প্রতিবেদন জমা দিয়েছে তদন্ত কমিটি বাঘাইছড়ি হত্যাকান্ড : ভোট বর্জনকারীদের দায়ী করে প্রতিবেদন জমা দিয়েছে তদন্ত কমিটি
রাজশাহীতে লেভেল ক্রসিং সামলাচ্ছেন এক নারী রাজশাহীতে লেভেল ক্রসিং সামলাচ্ছেন এক নারী
অভাক করা কান্ড ! রাঙামাটিতে কলা গাছে কলার পরিবর্তে মোচা অভাক করা কান্ড ! রাঙামাটিতে কলা গাছে কলার পরিবর্তে মোচা
রাঙামাটি-২৯৯ আসনের সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড়ঝাপ শুরু রাঙামাটি-২৯৯ আসনের সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড়ঝাপ শুরু
জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা -২০১৭ ও বৈষম্যনীতি নিয়ে কিছু কথা জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা -২০১৭ ও বৈষম্যনীতি নিয়ে কিছু কথা
অপহরণকারীদের কবল থেকে যেভাবে মুক্তি পেলেন সাংবাদিক নির্মল বড়ুয়া মিলন অপহরণকারীদের কবল থেকে যেভাবে মুক্তি পেলেন সাংবাদিক নির্মল বড়ুয়া মিলন
বাকৃবি গবেষকের দেশীয় প্রজাতির কৈ মাছের পোনা উৎপাদনে সফলতা বাকৃবি গবেষকের দেশীয় প্রজাতির কৈ মাছের পোনা উৎপাদনে সফলতা

আর্কাইভ

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)